রাম সেতুর রহস্য উদঘাটনে অনুমতি দিল কেন্দ্র সরকার

16
রাম সেতুর রহস্য উদঘাটনে অনুমতি দিল কেন্দ্র সরকার

সেই পৌরাণিক আমল থেকেই চলে আসা একটি গুজব, আদৌ সত্যি কিনা এবার সেটার খোঁজ চালাবে কেন্দ্র। আমরা অনেকেই ভারত ও শ্রীলংকার মধ্যবর্তী অঞ্চলে রাম সেতুর উল্লেখ পেয়েছি, কিন্তু আসলেও কি সেই ধরনের কোন সেতু পৌরাণিক আমলে তৈরি হয়েছিল? এই প্রশ্ন রয়েছে সবার মনেই। ভারত ও শ্রীলংকার মাঝে লুকিয়ে থাকা রামসেতু সত্যিই একটি বিস্ময়কর, তাছাড়া সেতুর আকারেই 48 কিলোমিটার দীর্ঘ পথ কিভাবে তৈরি হলো এ নিয়েও রয়েছে প্রশ্ন? এবার এই সেতুর রহস্য সন্ধান এর জন্যই পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাবে কেন্দ্র।

তাছাড়া এই চুনাপাথরের সেতু এটা তামিলনাড়ুর রামেশ্বরম দ্বীপ থেকে শুরু হয়ে শ্রীলংকার উত্তর-পশ্চিমে মুন্নার দ্বীপ পর্যন্ত বিস্তৃত। আর এই রাম সেতু নিয়ে এই গবেষণা আরো নতুন কিছু তথ্যের উন্মোচন করবে সেই আশায় রয়েছে সবাই।
এই নিয়ে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার অধীনস্থ নৃতাত্ত্বিক গবেষণা পরিষদ, এই গবেষণায় অনুমোদন দিয়েছে। সি এস আই আর ও এন আইও এদের তরফ থেকেই এই গবেষণা চালানো হবে।

এই গবেষণার দ্বারা রাম সেতুর বয়স, কিভাবে নির্মাণ করা হয়েছিল,তাছাড়া রাম সেতুর আশেপাশে কোন বাসস্থান ছিল কিনা এই সমস্ত কিছু খতিয়ে দেখা হবে। এই রাম সেতুর বয়স নিয়ে এবং রাম সেতু নিয়ে অনেক আগের থেকেই প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষকদের মধ্যে বিতর্ক রয়ে গেছে। একাধিক উন্নত ও বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনুসরণ করেই চলবে এই গবেষণার কাজ, রেডিও মেট্টিক পদ্ধতির দ্বারা ভূমির বয়স নির্ধারণ করা হবে, বিজ্ঞানীরা মনে করে এই রাম সেতু তৈরি হয়েছে কোরাল ও ঝামা পাথর দিয়ে, এখন সফলভাবে গবেষণা শেষ করা গেলে এবং সেতুর বয়স নির্ধারণ করা গেলে সহজেই রামায়ণের সময়কাল সম্পর্কে অবগত হওয়া যাবে।