WhatsApp এ ‘Hey’ কথাটা শোনামাত্র মারাত্মক রেগে গেলেন অফিসের বস

6
WhatsApp এ ‘Hey' কথাটা শোনামাত্র মারাত্মক রেগে গেলেন অফিসের বস

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া WhatsApp এর একটি মেসেজ নিয়ে শুরু হয়েছে তীব্র তর্ক বিতর্ক। WhatsApp এর একটি মেসেজ নিয়ে নেটিজেনদের মনে সৃষ্টি হয়েছে দোনামনা। আসল ঘটনাটি কি চলুন তা জেনে নেওয়া যাক।

একজন বস অফিসের এক কর্মীকে জিজ্ঞাসা করেন, তাঁর কাজ সাবমিট করা হয়েছে কিনা? এর উত্তরে ওই কর্মী বলে ‘Hey’ এখনও হয়নি। সেই ‘হে’ কথাটা থেকেই যত বিপত্তি। এই ‘Hey’ কথাটা শোনামাত্র অফিসের বস মারাত্মক রেগে যান। অফিসের কর্মীকে অনেক কথাও শোনান। নেট দুনিয়াতে সেই কথোপকথনওWhatsApp এ ‘Hey’ কথাটা শোনামাত্র মারাত্মক রেগে গেলেন অফিসের বস ছড়িয়ে পড়েছে।

r/antiwork নামের একটি প্রোফাইল থেকে রেডিটে ভাইরাল হয়েছে সেই কথোপকথন।ওই মেসেজে দেখা যাচ্ছে অফিসের বস ওই কর্মীকে বলেন “হাই শ্রেয়স আমি সন্দীপ। ‘হে’ শব্দটি তুমি প্লিজ ব্যবহার করবে না। কারণ এটা আমার জন্য খুবই অপমানজনক। আমার নাম যদি তোমার মনে না পড়ে, তাহলে কোনো সমস্যা নেই, শুধু হাই লিখলেই হত। প্রফেশনাল ক্ষেত্রে ‘ডিউড,’ ‘ম্যান’ ইত্যাদি শব্দ কখনও ব্যবহার করা উচিত নয়। সেখানে শুধু হ্যালো এবং হাই ব্যবহার করাই উচিত।

এরপর বসের মেসেজের উত্তরে ওই কর্মী বলেন, আমিতো আপনার সাথে লিঙ্কডিন বা মেলে কথা বলছি না। WhatsApp এ ক্যাজুয়াল ভাবে আপনার সাথে কথা বলছি। আর এটা তো আমার পার্সোনাল নম্বর। আর তাছাড়া প্রফেশনাল ক্ষেত্রেও যদি কেউ আমার উদ্দেশ্যে ‘হে’ শব্দটি ব্যবহার করে তাফলে আমি অন্তত কখনোই অপমান বোধ করব না।

তখন ওই অফিসের বস কর্মীকে বলেন WhatsAppকে এখন আর পার্সোনাল বলা যায় না। কারণ এটি বর্তমানে অফিসের কাজ সহ অন্যান্য বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হচ্ছে। হ্যাঁ তবে আমি আমার চিন্তাধারা কখনোই তোমার ওপর চাপাতে চাই না। আমি আমার ব্যক্তিগত মতামতের কথাই বললাম। তুমি এটা বিশ্বাস করলে ভালো। আর যদি নাও বিশ্বাস করো তাহলে তুমি যেটা মনে করো সেটাই করতে পারো। কিন্তু আগামী দিনে হয়তো এসব কারণে আরও বড়সড় কোনো খারাপ অভিজ্ঞতার সম্মুখীন তোমাকে হতে হবে। আর তখন তুমি ঠিক এটা বুঝবে।

এই কথোপকথনই এখন ভাইরাল নেট দুনিয়ায়। আর এটিকে কেন্দ্র নেটিজেনরা বিভিন্ন তর্ক বিতর্ক শুরু করেছে। আচ্ছা এ প্রসঙ্গে আপনার মতামত কী তা আমাদের জানাতে ভুলবেন না।