নদীর স্রোতে ভেসে গিয়ে মৃত্যু হল হস্তিশাবকের

6
নদীর স্রোতে ভেসে গিয়ে মৃত্যু হল হস্তিশাবকের

মেদনীপুর, জলদাপাড়া অঞ্চলে হাতির অভাব একেবারেই নেই। মাঝে মাঝেই সকাল-বিকেল নজর দেবার সময় দেখতে পাওয়া যায় হাতির জঙ্গল কে। অনেক সময় কোন এলাকা থেকে হাতির পাল ঢুকে পড়ে জঙ্গলে। কিন্তু বনে উপযুক্ত খাবার না থাকার কারণে যখন-তখন লোকালয়ে ঢুকে পড়ে হাতির দল। এর ফলে ব্যাহত হয় জনজীবন। অনেক সময় শুধুমাত্র খাবার খোঁজা তাগিদে লোকালয়ের বিভিন্ন বাড়ি ভেঙে দিয়ে চলে যায় হাতির পাল।

বনদপ্তর সূত্রে খবর পাওয়া যায় যে, পশ্চিম মেদিনীপুরের গোয়ালতোড় ধরমপুর কদমডিহা বিভিন্ন এলাকায় জঙ্গলে ঢুকে পড়ছে কুড়ি থেকে পঁচিশ টি হাতির একটি দল। এইভাবে হাতির তাণ্ডবে ব্যাপক ক্ষতি হয় ফসলের। এমনই একটি কান্ড ঘটে শুক্রবার। শুক্রবার গভীর রাতে দুটি দলে বিভক্ত হয়ে খাবারের সন্ধানে বেরিয়ে পড়ে হাতির দল। বড় হাতের দলে কিছু হস্তিশাবক ছিল। আনুমানিক বয়স তাদের মাত্র এক সপ্তাহ।

গোয়ালতোড়ে চাউলি গ্রাম দিয়ে যখন হাতির দল নদী পার হচ্ছিল, তখন হঠাৎ করে নদীর জলের তোড়ে ভেসে যায় একটি হস্তিশাবক। নিজেকে ধরে রাখতে না পেরে জলের তোড়ে ভেসে যায় সে। প্রতিদিন মাছ ধরার জন্য মাছ নদীতে বাস নিয়ে ফাঁদ পেতে থাকে স্থানীয় বাসিন্দারা। সৌভাগ্যক্রমে মাছ ধরার সেই ফাঁদে আটকে যাই হোক এর দেহ।

শনিবার সকাল বেলায় ঘটনাটি স্থানীয় বাসিন্দাদের নজর পড়তেই এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে কবর দেওয়া হয় গোয়ালতোড় থানায় ও বনদপ্তর এর অফিসে। প্রাথমিক তদন্তে অনুমান জলে ডুবে মৃত্যু হয়েছে হস্তি শাবক টির। তবে প্রাথমিক তদন্ত করার পর দেহটি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। সম্প্রতি যেভাবে হাতি এবং মহিষ হত্যার কথা সামনে আসছে, সেই কারণেই ময়না তদন্ত করে জেনে নেওয়া যাবে হস্তি শাবক এর মৃত্যুর আসল কারণ।