মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিকের টেস্ট পরীক্ষা নেওয়া দাবীতে সবর হলেন শিক্ষক সংগঠন

7
মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিকের টেস্ট পরীক্ষা নেওয়া দাবীতে সবর হলেন শিক্ষক সংগঠন

করোনাভাইরাসের জেরে কার্যত সারাদেশে পড়ুয়াদের পঠন-পাঠন লাটে উঠেছে। এমতাবস্থায় শিক্ষা ব্যবস্থায় আর গড়িমসি করতে চাইছেন না শিক্ষকরা। সম্প্রতি আগামী বছরের মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার সময়সূচি জানানো হয়েছে। তবে টেস্টের ব্যাপারটা পুরোপুরি স্কুলের সিদ্ধান্তের উপর ছাড়া হয়েছে।

মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার আগে যে টেস্ট পরীক্ষা নেওয়া হয় তা থেকে বোঝা যায় একজন ছাত্র বা ছাত্রী বোর্ড পরীক্ষার জন্য ঠিক কতখানি প্রস্তুত। এভাবেই কার্যত সকল ছাত্র-ছাত্রীর মূল্যায়ন করা সম্ভব। একাধিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক এবং শিক্ষক সংগঠন গুলি দাবি তুলেছেন যে যদি গত বছরের মতো এ বছরেও করোনার কারণে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিল হয় তাহলে টেস্টের নম্বরের ভিত্তিতে পরীক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা যাবে। তাই তারা টেস্টের ব্যবস্থা করার দাবি জানাচ্ছেন।

স্কুলে এসে টেস্ট দেওয়ার পক্ষে সওয়াল করছেন শিক্ষকরা। আগামী 16 ই নভেম্বর থেকে রাজ্যে স্কুল খুলছে। আপাতত নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীরা স্কুলে আসতে পারবেন বলে জানানো হয়েছে। শিক্ষক সংগঠনের একাংশের দাবি মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক স্কুলগুলিতে টেস্ট নেওয়ার নির্দেশ দিক সংসদ।

অনলাইনে নয়, অফলাইনে স্কুলে এসে টেস্ট পরীক্ষা দিয়ে যাক ছাত্রছাত্রীরা। এই দাবিতে সরব হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের প্রধান শিক্ষক সমিতি। এই সমিতির সাধারণ সম্পাদক বলেছেন যদি গতবারের মতো এবারও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা না হয় তাহলে টেস্টের মূল্যায়ন কাজে লাগবে। তাই স্কুল গুলিকে অবিলম্বে টেস্ট নিতে বাধ্য করুক সংসদ, এমনটাই চাইছেন তারা।