দেখে নিন অগ্ৰাহয়ন মাসে কি করলে শ্রীকৃষ্ণের কৃপা পেতে পারে মানুষ

14
দেখে নিন অগ্ৰাহয়ন মাসে কি করলে শ্রীকৃষ্ণের কৃপা পেতে পারে মানুষ

প্রাচীন বাংলা ভাষায় এই অগ্ৰাহয়ন মাসকে হ্যঅন্যান্য মাসও বলা হয়ে থাকে। মৃগশিরা নামের তারা থেকে ‘মার্গশীর্ষ’ নামটির উৎপত্তি হয়েছে। অগ্র’ শব্দের অর্থ ‘আগে’ আর ‘হায়ণ’ শব্দের অর্থ ‘বছর’। অগ্র শব্দের অর্থ আগে অপরদিকেশ শব্দের অভিধানিক অর্থ হলো ওই সময়ে ধান উৎপন্ন হয়। প্রাচীনকাল থেকেই আমরা জেনে আসছি অঘ্রাণ মাসে প্রচুর ধান উৎপন্ন হয় তাই এই মাসের নামকরণ করা

পুরাণে বলা আছে কোন মনষ্কামনা পূর্ণ হওয়ার জন্য এই মাসেই উপবাস করা যেতে পারে। এই মাসে উপবাস করলে শ্রীকৃষ্ণের কৃপা পেয়ে থাকে মানুষজন। আমাদের বাঙালিদের কাছে এই মাসটি হল বিবাহের দিক থেকে শুভ মাস। এই মাসটি আবার লক্ষ্মীমন্ত মাস। এই মাসে প্রচুর ধান উৎপন্ন হয় তাই এই মাসে নবান্ন উৎসব ও লক্ষ্মী পূজা পালিত হয়।

ভগবান শ্রীকৃষ্ণ তার গোপীদের পরামর্শ দিয়েছিলেন এই মাসে প্রতিদিন সকাল বেলায় গঙ্গা স্নান করে সূর্য প্রণাম এবং ইস্ট দেবতার পূজা করার জন্য। যদি সম্ভব হয় তাহলে এই মাসটির সম্পূর্ণ নিরামিষ খাওয়া প্রয়োজনীয়। আর যদি সম্পূর্ণ মাসে নিরামিষ খাওয়া না হয় তাহলে অন্তত শনিবার এবং মঙ্গলবার নিরামিষ খাওয়া উচিত।

স্নানের সময় জলে তুলসি পাতা ফেলে দিন। সেই জলে স্নান করে ইষ্ট দেবতা পূজা করুন। এই মাসে গরিবদের অন্য এবং বস্ত্র দান করুন তাতে আপনার মনস্কামনা পূর্ণ হবে। ঘর দুয়ার এই সময় পরিষ্কার রাখুন। রান্নাঘরের খাবারের জিনিস রাখার কতগুলো এই মাসেই খালি রাখবেন না কিছু না কিছু ভরে রেখে দিন। রাত্রে ঘুমাতে যাওয়ার আগে বাড়ির মেইন দরজার পাশে এক বালতি জল রেখে দিন। সকাল বেলায় ঘুম থেকে উঠে ওই বালতির জল বাড়ীর মেন দরজায় ঢেলে মেইন দরজার সামনে থেকে পরিষ্কার করে রাখুন এতে সংসারের মঙ্গল হবে।