দেখে নিন অতিরিক্ত মানসিক চাপ শরীরে কি প্রভাব ফেলে এবং তা প্রতিকারের উপায়

84
দেখে নিন অতিরিক্ত মানসিক চাপ শরীরে কি প্রভাব ফেলে এবং তা প্রতিকারের উপায়

বর্তমান যুগে মানসিক চাপ অন্যান্য সকল শারীরিক সমস্যার মতনই প্রতিনিয়ত মানবজীবনে দুঃসহ প্রভাব ফেলে চলেছে। শিশু-কিশোর, মাঝবয়সী এমনকি বৃদ্ধরাও আপন আপন মানসিক চাপ নিয়ে আছেন। তবে মানসিক চাপ সংক্রান্ত সমস্যায় সবথেকে বেশি ভোগেন মধ্যবয়স্করা। সংসার জীবন, কর্মক্ষেত্র, ভবিষ্যৎ চিন্তা সকল কিছুই তার কারণ। কিন্তু এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় কি?

উপায় অবশ্যই আছে এবং তা একেবারে ঘরোয়া “টোটকা”। ভারতবর্ষে এখনো সাধারন মানুষ মানসিক চাপ, উদ্বেগ, মন খারাপকে গুরুত্ব দিতে শেখেননি। এসকল মানসিক সমস্যাও যে অন্যান্য শারীরিক সমস্যার মতনই এক সাধারণ রোগ, তা তারা জানেন না। ফলস্বরূপ এই নিতান্ত সাধারণ সমস্যাই কিন্তু পরবর্তী ক্ষেত্রে মানব জীবনে মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে, এমনকি প্রাণ সংশয়ও দেখা দেয়।

মানসিক উদ্বেগের সরাসরি প্রভাব পড়ে হৃদযন্ত্রের উপর। মানসিক উদ্বেগ বাড়লে রক্তচাপ জনিত সমস্যাও বাড়বে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে মুঠো মুঠো ওষুধ খাওয়ার বদলে এই ঘরোয়া টোটকাটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন। খুব সহজ এই উপায়। একটিমাত্র উপাদানে আপনার সমস্যা দূর হতে পারে। সেই উপাদানটি হলো জোয়ান। পুরনো পন্থীরা এখনো খাওয়ার পরে এক চিমটে জোয়ান মুখে দেন মুখশুদ্ধির জন্য।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর, শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় এসেন্সিয়াল অয়েল সমৃদ্ধ জোয়ান নিয়মিত খেলে অনেক শারীরিক সমস্যা দূরে থাকে। তাই বিশেষজ্ঞরা নিয়মিত তা সেবন করার পরামর্শ দেন। তবে জোয়ানের ঝাঁজের কারণে অনেকেই শুধু মুখে তা খেতে পছন্দ করেন না। তাদের জন্য রয়েছে বিশেষ উপায়। এক কাপ জলে এক চা-চামচ জোয়ান ভিজিয়ে রাখুন সারারাত। পরদিন সকালে জলটা ফুটিয়ে ঠান্ডা করে খেয়ে ফেলুন। জোয়ানের মধ্যে উপস্থিত থাইমল হজম শক্তি বাড়াবে, রক্ত সংবহন তন্ত্রকে সুস্থ রেখে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে। তাই সুস্থ জীবন পেতে আজ থেকেই এই সু-অভ্যাস আপন করে নিন।