সন্দেহের বশবতী হয়ে ছুরি নিয়ে স্বামীর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন এক মহিলা

8
সন্দেহের বশবতী হয়ে ছুরি নিয়ে স্বামীর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন এক মহিলা

যে সম্পর্কে সন্দেহ ঢুকে যায়, সেই সম্পর্ক বাঁচিয়ে রাখা খুবই কঠিন হয়ে যায়। সম্পর্কের বড় ভীত যেমন বিশ্বাস, তেমনি সামান্য ছোট অবিশ্বাস সেই ভিত নাড়িয়ে দিতে পারে। এমনই একটি কান্ড ঘটল মেস্কিকো একটি অঞ্চলে। সেখানে শুধুমাত্র সন্দেহের বশে স্বামীকে ছুরি মারতে দ্বিধা বোধ করলেন না লেওনোরা নামে এক মহিলা। তবে আসল ঘটনাটি জানার পর সকলেই অনেকটা অবাক হয়েছেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে যে, অন্য কারো সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে এমন সন্দেহ করে স্বামীর মোবাইল নিয়মিত চেক করতে ওই মহিলা। প্রতিদিন স্বামীর মোবাইল চেক করা একটি অভ্যাসে দাঁড়িয়ে গিয়েছিল তার। অভ্যাসবশত স্বামীর মোবাইল দেখতে গিয়ে দেখতে পারেন একজন অল্প বয়সের মহিলার ছবি। এতেই হঠাৎ করে রেগে যান তিনি।

রান্না ঘরে ছুটে গিয়ে ছুরি নিয়ে এসে স্বামীর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন ওই মহিলা। এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে স্বামীকে। রক্তাক্ত অবস্থায় কোন ভাবে হাত থেকে রক্ষা পান জুয়ান নামক ঐ ব্যক্তি। এরপরই প্রথম প্রকাশ্যে আসে ঘটনাটি।

স্বামী স্ত্রীকে জানান যে, ছবিতে দেখতে পাওয়া মহিলা আসলে অন্য কেউ নয়, স্বয়ং লিওনোরা। এই ছবিটা তখনকার যখন তারা প্রথম প্রেম করতেন। প্রথমে একেবারে হতবাক হয়ে যান স্ত্রী। কিছুতেই বিশ্বাস করতে চাননি স্বামীর কথা।ঠান্ডা মাথায় স্বামী তাকে সব কিছু বোঝাতে শুরু করেন।

এরইমধ্যে প্রতিবেশীরা পুলিশে খবর দিলে সেখানে উপস্থিত হন পুলিশ। তাড়াতাড়ি জুয়ানকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। গ্রেফতার করা হয় লিওনোরাকে। সমস্ত ঘটনা শুনে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। নিজেই নিজের ছবি কি করে চিনতে পারলেন না, এই প্রশ্ন বারবার তার কাছে তুলে ধরেন পুলিশ।

স্বামীকেও হাসপাতালে ঠিক একই কথা জিজ্ঞাসা করা হয়, কি করে নিজের ছবি চিনতে পারলে না তার স্ত্রী। উত্তরে জুয়ান জানান যে, পুরনো ছবিটা এডিট করে তিনি ফোনে স্টোর করে রেখেছিলেন। তখন তার স্ত্রী অনেকটাই রোগা ছিলেন। নিজের ছবিটাই চিনতে পারেনি তার স্ত্রী।

নেহাতই ভুল বোঝাবুঝি হবার পরে এ রকম একটি ঘটনা ঘটে গেছে, তাই স্ত্রীর বিরুদ্ধে স্বামী কোনরকম পুলিশে অভিযোগ করেনি। তবে নিজের ছবি কি করে চিনতে পারলেন না, এই বিষয়ে একটি প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। অন্যদিকে লিওনোরা মানসিক রোগে আক্রান্ত কিনা, সে বিষয়ে জানার জন্য মনোবিদদের সাহায্য নিচ্ছেন পুলিশ।