সামান্য গলা ব্যথা অথবা সর্দিতে দারুন কাজ করছে স্ট্রিম থেরাপি! দেখুন ভিডিও

6
সামান্য গলা ব্যথা অথবা সর্দিতে দারুন কাজ করছে স্ট্রিম থেরাপি! দেখুন ভিডিও

সারা বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ চলতি বছরের করোনা নামক মহামারীর শিকার। বিভিন্ন রাষ্ট্রের পড়ে গেছিল হাহাকার। অদূর ভবিষ্যতে কি হবে তা বুঝে উঠতে পারছিল না কেউ। চীনের একটি গবেষণাগার থেকে কিভাবে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ল এই ভাইরাস, তা বুঝে উঠতেই অনেকটা দেরি হয়ে গেছে। দীর্ঘ লকডাউনে গৃহবন্দি হয়ে থাকার ঘটনা আমাদের জীবনে এই প্রথম। সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে গেলেও সেই দিনের কথা বলতে পারেনা কেউ।

একের পরে এক লকডাউন এর ঘোষণা শারীরিক এবং মানসিকভাবে অচল করে দিয়েছিল আমাদের। তবে জনজীবন আস্তে আস্তে অনেকটাই স্বাভাবিক হচ্ছে। কিন্তু যা ক্ষতি হবার হয়ে গেছে। চিকিৎসার অভাবে মারা গেছে লাখ লাখ মানুষ। দেশের অর্থনীতি একেবারে ঠেকেছে তলানীতে। বহু মানুষের চাকরি হারিয়েছে। বন্ধ হয়েছে ব্যবসা। কিন্তু এত কিছুর মধ্যে মানুষ প্রতিদিন ঘুরে দাঁড়ানোর পন্থা বেছে নিচ্ছেন। সকলকে চমকে দিয়েছেন এমনই একজন রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী।

দীর্ঘ লকডাউন এর জন্য বন্ধ হয়ে গিয়েছিল তার খাবারের দোকান। মাথায় হাত পড়ে গিয়েছিল ব্যবসায়ীর। কিন্তু হেরে গেলে চলবেনা। কোনরকমে পেট চালাতেই হবে। সবকিছু ঠিক হয়ে গেলেও রাস্তার দোকানে খাবার খেতে কেউ আসছে না। এইভাবে কতদিন ব্যবসা চালানো যায়? করোণা কে সঙ্গে নিয়ে কি করে ব্যবসা দাঁড়ানো যাবে তা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল দোকানের মালিকের। অবশেষে তিনি আবিষ্কার করে ফেলেন এক আশ্চর্য পন্থা। খুলে ফেললেন একটি স্ট্রিম থেরাপির দোকান।

কি হয় এই স্ট্রিম থেরাপি? তা জানতে গেলে কিছুটা চিকিৎসাবিজ্ঞান জানা দরকার। তবে এসব চিকিৎসা বিদ্যার কোন ধার ধারে না এই ব্যক্তি। নিজের দোকান এই জল গরম করেছেন একটি উনুনে। তারপর বসিয়েছেন একটি লোহার পাত্র। যার সঙ্গে লাগিয়ে দিয়েছেন কয়েকটি পাইপ।

দোকানদার স্বপ্নেও ভাবতে পারিনি যে তার স্ট্রিম থেরাপি এত ফেমাস হবে। যদি সামান্য গলা ব্যথা অথবা সর্দি হয়েছে তারাই বসে পড়েছেন এই দোকানের পাইপের সামনে। স্ট্রিম থেরাপিতে যে অনেকটাই আরাম পাচ্ছেন তারা তা বলাই বাহুল্য। একটু অসুস্থ হলেই মানুষ চলে আসেন এই দোকানের সামনে।

ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার হতেই ভাইরাল হয়ে যায়। ভিডিওটি নিজের টুইটার হ্যান্ডেল শেয়ার করেছেন মাহিন্দ্রা গ্রুপের কর্ণধার আনন্দ মাহিন্দ্রা। তিনি দোকানের মালিকের বুদ্ধির তারিফ করতে পিছপা হননি। তিনি দোকানের মালিকের বুদ্ধি র সঙ্গে হার্বাট ইউনিভার্সিটি র তুলনা করেছেন। ভারতের কোথায় এই দোকান জানা না গেলেও মুহূর্তে ভাইরাল হয়ে যায় এই পোস্ট।