উপকূলবর্তী এলাকায় শুরু ঝড়-বৃষ্টি! ফ্রেজারগঞ্জে ঢুকছে সমুদ্রের জল

9
উপকূলবর্তী এলাকায় শুরু ঝড়-বৃষ্টি! ফ্রেজারগঞ্জে ঢুকছে সমুদ্রের জল

আরো কাছাকাছি এসে গেছে ঘূর্ণিঝড়। আর শুধু রোয়েছে সময়ের অপেক্ষা। ইতিমধ্যে ফ্রেজারগঞ্জ ঢুকেছে সমুদ্রের জল। চলছে গ্রামের বাঁধ সারাইএর কাজ। উপকূলবর্তী এলাকায় ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে ঝড়-বৃষ্টি। আতঙ্কে রয়েছে সেখানকার মানুষ। ফ্রেজারগঞ্জ, পারাদ্বীপ সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষ সরে যাচ্ছে নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে। ইতিমধ্যে কিছু কিছু স্থানে কংক্রিটের বাঁধ ভেঙে নোনা জল ঢুকে পড়েছে গ্রামে। অবিলম্বে গ্রাম ফাঁকা করতে বলা হচ্ছে প্রশাসনের তরফ থেকে।

ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে ব্যাপক জলোচ্ছ্বাস। সময়ের সাথে সাথে তা আরও কিছুটা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। একদিকে ঘূর্ণিঝড়ের ফলে জলোচ্ছ্বাস অন্যদিকে একই সঙ্গে পড়েছে পূর্ণিমার ভরা কোটাল। সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাস মোটামুটি ৫ ফুট পর্যন্ত হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

আজ নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে এবং কাল তা সুপার সাইক্লোনে পরিণত হয়ে আছড়ে পড়বে বালেশ্বর উপকূলে। পারাদ্বীপ এবং সাগরের ভিতর দিয়ে চলে যাবে এই ঘূর্ণিঝড়। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব পড়বে পারাদ্বীপ, ফ্রেজারগঞ্জ, চাঁদবালি এলাকা তে। সবথেকে বেশি প্রভাব পড়বে পূর্ব মেদিনীপুর এলাকায়।

ঝড়ের গতিবেগ থাকবে প্রতি ঘন্টায় ১৫৫ থেকে ১৬৫ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা। বৃহস্পতিবার সেটা কমে গিয়ে দাঁড়াবে ৫৫ থেকে ৬৫ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা তে। তবে সুপার সাইক্লোন কোন কোন জায়গায় গতিবেগ বাড়িয়ে প্রতি ঘন্টায় ১৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হয়েছে।