শীঘ্রই জিআই তকমা পেতে চলেছে বাংলার বিখ্যাত মিষ্টি সরভাজা-সরপুরিয়া

43
শীঘ্রই জিআই তকমা পেতে চলেছে বাংলার বিখ্যাত মিষ্টি সরভাজা-সরপুরিয়া

বাংলার গর্বের মুকুটে এবার আরও একটি নতুন পালক সংযোজিত হলো। কৃষ্ণনগরের এক মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে শীঘ্রই বাংলার বিখ্যাত মিষ্টি সরভাজা-সরপুরিয়া এ বার GI (Geographical identification) তকমা পেতে চলেছে। উল্লেখ্য, ইতিপূর্বে বাংলা সর্বকালের জনপ্রিয় মিষ্টি রসগোল্লাও GI এর তকমা পেয়েছে। যদিও রসগোল্লার উৎপত্তি নিয়ে প্রতিবেশী রাজ্য ওড়িশার সঙ্গে বাংলার জোর সংঘাত বেঁধেছিল।

জিআই রেজিস্ট্রেশন কর্তৃপক্ষ অবশ্য শেষমেষ পশ্চিমবঙ্গের পক্ষেই রায় দেয়। এরপর একে একে বর্ধমানের মিহিদানা, সীতাভোগ এবং জয়নগরের মোয়াও জিআই ট্যাগ অর্জন করে ফেলেছে। কৃষ্ণনগরের সরভাজা সরপুরিয়াও এবার সেই তালিকায় নাম লিখিয়ে ফেললো। কৃষ্ণনগরের মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের তরফ থেকে কয়েকবছর আগেই জিআই রেজিস্ট্রেশন কর্তৃপক্ষের কাছে এই বিষয়ে আবেদন জানানো হয়েছিল।

কিন্তু প্রথমে সংগঠনের রেজিস্ট্রেশন নম্বরের অভাবে ও পরে করোনা অতিমারীর কারণে বিষয়টিতে বিলম্ব হয়। রাজ্যের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি দপ্তরের উল্লেখ করে কৃষ্ণনগরের মিষ্টি ব্যবসায়ীদের সংগঠনের তরফ থেকে এই সুসংবাদটি জানানো হয়েছে। সরভাজা সরপুরিয়া শীঘ্রই জিআই তকমা পেতে চলেছে। বর্তমানে অবশ্য কৃষ্ণনগর ছাড়াও রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের বেশকিছু মিষ্টির দোকানে এই মিষ্টি পাওয়া যায়।

যদিও কৃষ্ণনগরের মিষ্টির দোকান ছাড়া রাজ্যের অন্যত্র প্রাপ্ত এই সরভাজা এবং সরপুরিয়ার স্বাদ ভালো হয় না বলেই দাবি ওই মিষ্টি সংগঠনের। বাংলার ঐতিহ্য সরভাজা এবং সরপুরিয়া জন্ম আজ থেকে প্রায় পাঁচশো বছর আগে। তবে এই নিয়ে আবার দ্বিমত রয়েছে। একদল বিশেষজ্ঞ দাবি করেন এই মিষ্টির জন্ম আজ থেকে দেড়শো বছর আগে। কৃষ্ণনগরের ইতিহাস এবং ঐতিহ্যের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত এই মিষ্টি।