অচিরেই সবকিছু ধ্বংস হতে চলেছে পৃথিবী! দেখে নিন আর কি কি অপেক্ষা করছে পৃথিবীবাসীর জন্য?

178
অচিরেই সবকিছু ধ্বংস হতে চলেছে পৃথিবী! দেখে নিন আর কি কি অপেক্ষা করছে পৃথিবীবাসীর জন্য?

বর্তমানে পৃথিবীর যা অবস্থা, অচিরেই সবকিছু ধ্বংস হতে চলেছে, এ কথাই বারবার মনে হচ্ছে সকলের। শাস্ত্র মতে বারবার আমরা শুনে এসেছি কলিযুগে পাপের ঘড়া পূর্ণ হবে। প্রত্যেক দেবতা রুষ্ট হবে মানব জাতির উপর। তাহলে এই কলিযুগে কি সব কিছুর বিনাশ হবে? ধ্বংস হয়ে যাবে এই সাধের পৃথিবী? কি কি অপেক্ষা করছে পৃথিবীবাসীর জন্য? সর্বনাশ নাকি নতুন কোন দিনের শুরু? আসুন আমরা জেনে নিই, হিন্দু এবং শাস্ত্র পুরান সম্পর্কে এই কলিযুগ সম্পর্কে ঠিক কি বলা আছে। মহাভারত অনুসারে, যখন কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধ চলছিল, তারই মধ্যে কোন একসময় অর্জুন নিজের অস্ত্র ত্যাগ করেন।

তিনি আশেপাশের সমস্ত শত্রু শত্রুদের মধ্যে নিজের আত্মীয়-স্বজন কে দেখতে পাচ্ছিলেন। মানসিকভাবে হঠাৎ করে তিনি ভেঙে পড়েন। শ্রীকৃষ্ণ কে বলেন রণক্ষেত্রে নিজের আত্মীয় স্বজনদের সঙ্গে লড়তে পারছেন না। এ যুদ্ধ করা তার পক্ষে সম্ভব না। তখন শ্রীকৃষ্ণ তাকে বোঝান, জীবনে এই যুদ্ধের কতটা প্রয়োজন! শ্রীকৃষ্ণের বাণীতে ফুটে ওঠে জীবনদর্শনের নানা আঙ্গিক। হিন্দু শাস্ত্র মতে, শ্রীকৃষ্ণ নশ্বর দেহ ত্যাগ করার পর থেকেই শুরু হয় আমাদের এই কলিযুগ। এই যুগ শুরু হয়েছিল কুরুক্ষেত্র যুদ্ধ চলাকালীন।

বেদ অনুসারে কলিযুগের একেবারে শেষের দিকে পৃথিবীতে শুরু হবে ধ্বংসলীলা, মানুষের মানুষের যুদ্ধ, হিংসা, লোভ, ঘৃণা, হানাহানি সবই থাকবে চরমপর্যায়ে। বইতে থাকবে রক্তগঙ্গা। প্রকৃতির ওপর অত্যাচারের প্রতিশোধ নেবে প্রকৃতি। ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয় শেষ হয়ে যাবে জনজীবন। অর্থাৎ খুব স্পষ্টভাবেই কলিযুগে পৃথিবী ধ্বংসের ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছে।

এবার প্রশ্ন, কলিযুগের পর কি হবে? হিন্দু শাস্ত্র মতে, কলিযুগের পর সময় আবার কিছুটা থেমে থাকবে। সবকিছু ধ্বংস হয়ে যাবার পর পৃথিবী এক অন্ধকার জগতে পরিণত হবে। নতুন ভাবে জন্ম হবে মানবিকতার, নতুন আশার আলো দেখতে পাবে মানুষ, শুরু হবে সত্য যুগের। কলিযুগ ধ্বংস হবার পেছনে সবথেকে বড় অবদান থাকবে মানুষের। অমানবিকতার চরম পর্যায়ে পৌঁছে যাবে মানুষ। মানুষ মানুষের সাথে জন্তুর মত ব্যবহার করবে। প্রকৃতিকে যথেচ্ছভাবে নষ্ট করবে। এর শাস্তি স্বরূপ ধ্বংস হয়ে যাবে মানব সমাজ।