সৌন্দর্যতার নিরিখে জনপ্রিয়তা তুঙ্গে তাপস পালের একমাত্র কন্যা সোহিনী পাল

4
সৌন্দর্যতার নিরিখে জনপ্রিয়তা তুঙ্গে তাপস পালের একমাত্র কন্যা সোহিনী পাল

টলিউড ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম উজ্জ্বল নক্ষত্র তাপস পাল আজ তারাদেরই দেশে। গত ২০২০ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি ইহজগতের মায়া ত্যাগ করে পরলোকে পাড়ি দিয়েছেন তিনি। আজ থেকে প্রায় ৪২ বছর আগে ১৯৮০ সালে তাপস পাল ‘দাদার কীর্তি’ সিনেমার মাধ্যমে অভিনয় জগতে অভিষেক ঘটেছিল। আর সেখানেই অসাধারণ অভিনয়ের মাধ্যমে দর্শকদের মন জয় করে নেন। তারপর থেকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাপস পালকে।

প্রায় ৪০ বছরের কর্মজীবনে একের পর এক জনপ্রিয় সিনেমায় চুটিয়ে কাজ করে গেছেন তিনি। তাপস পালের অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে অন্যতম হল- ‘অনুরাগের ছোঁয়া’, ‘অমর বন্ধন’, ‘গুরু দক্ষিণা’, ‘সাহেব’, ‘সুরের সাথী’, ‘সুরের আকাশে’, ‘নয়নমণি’, ‘চোখের আলোয়’, ‘শুভ কামনা’, ‘মায়াবিনী’, ‘তবু মনে রেখো’, ‘তুমি যে আমার’।

কেরিয়ারের দ্বিতীয় ভাগে ‘মন্দ মেয়ের উপাখ্যান’ থেকে শুরু করে ‘শুধু ভালোবাসা’, ‘খলনায়ক’, ‘গ্রেপ্তার’, ‘আটটা আটের বনগাঁ লোকাল’, ‘দুর্গেশ নন্দিনী’ প্রভৃতি সিনেমায় তাঁর অনবদ্য অভিনয় আজও দর্শকদের মনে তাঁর স্মৃতিকে ঊজ্জ্বল রেখেছে। তাপস পালের পথ অনুসারে তাঁর একমাত্র কন্যা সোহিনী পাল অভিনয় জগতে পা রাখেন।

সোহিনী পালের অভিনয় জীবন শুরু হয় মাত্র ১২ বছর বয়সেই। অঞ্জন দত্ত পরিচালিত সিনেমা ‘Bow Barracks Forever’-র মাধ্যমে তাঁর অভিনয় যাত্রা শুরু হয়। তারপর একের পর এক সিনেমা যেমন ‘জ্যাকপট’, ‘তমশি’, ‘অটোগ্রাফ’ ইত্যাদিতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন। এরপর টলিউড ছেড়ে সোহিনী মুম্ব‌ই পাড়ি দেন এবং ২০১৫-১৭ সালে তিনি হিন্দি সিরিয়াল ‘চিড়িয়া ঘর’, ২০১৮ সালে ‘আপ কে আ জানে সে’ সিরিয়ালে কাজ করেন। তাঁর অগণিত ভক্ত সংখ্যাই জানিয়ে দেয় তাঁর জনপ্রিয়তা ঠিক কতখানি। সৌন্দর্যতার নিরিখে অনেক নামী অভিনেত্রীদেরও তিনি পিছনে ফেলে দেবেন। তবে বেশ কিছু সময় তিনি অভিনয় জগত থেকে সরে রয়েছেন।