হোয়াটসঅ্যাপ কে ছাড়িয়ে মোস্ট ডাউনলোডেড হিসেবে বিবেচিত হল সিগনাল অ্যাপ

11
হোয়াটসঅ্যাপ কে ছাড়িয়ে মোস্ট ডাউনলোডেড হিসেবে বিবেচিত হল সিগনাল অ্যাপ

কেউ ভাবতেই পারেনি এত কম সময়ে এমন ঝড়ো ব্যাটিং করবে সিগন্যাল। ক্রস প্লাটফর্ম এনক্রিপটেড মেসেজিং অ্যাপ সিগন্যাল, জল ঝড়ের গতিতে ডাউনলোড করছে মানুষ। একেবারে জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ হোয়াটস অ্যাপকে ছাড়িয়ে দ্রুতগতিতে প্লে স্টোরে ফ্রী অ্যাপস ক্যাটাগরিতে চলে আসলো এই সিগনাল। ভারতসহ বিশ্বের আরো অনেক জায়গায় ইতিমধ্যে জনপ্রিয়তার শিখর ছুয়ে ফেলেছে সিগন্যাল মেসেজিং অ্যাপ।

এই অ্যাপ এর অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডেল একটি স্ক্রিনশট শেয়ার করা হয় যেখানে দেখা যায় হোয়াটসঅ্যাপ কে ছাড়িয়ে এক নম্বরে চলে এসেছে সিগনাল অ্যাপটি। ক্যাপশনে লেখা দেখুন আপনারা কি করছেন। ভারত সহ অস্ট্রেলিয়া ফিনল্যান্ড হংকং জার্মানি ফ্রান্স সুইজারল্যান্ড এই সমস্ত জায়গায় এখন হোয়াটসঅ্যাপ কে ছাড়িয়ে মোস্ট ডাউনলোডেড হিসেবে বিবেচিত হয়েছে সিগনাল অ্যাপ।

সম্প্রতি সংবাদমাধ্যম সূত্রের সেন্সর টাওয়ার হিসেবে জানা যায়, এন্ড্রয়েড এবং আইওএস এই দুই ক্ষেত্রেই ইতিমধ্যে ১ লক্ষ মানুষ সিগন্যাল অ্যাপটি ডাউনলোড করে ফেলেছে। আর নতুন বছরের প্রথম দিকে এই হোয়াটসঅ্যাপের ডাউনলোডের পরিমাণ ১১% কমে এসেছে। তবে হোয়াটসঅ্যাপ সারা বিশ্বে এখনও ১০.৫ মিলিয়ন ডাউনলোডের সংখ্যা ধরে রেখেছে। আসলে গত কয়েকদিন আগেই হোয়াটসঅ্যাপের প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে অনেকেই সরব হয়েছিলেন যার মধ্যে অন্যতম টেসলা সিইও এলন মাস্ক।

অ্যালন মাস্ক নিজের টুইটার হলে এই হোয়াটসঅ্যাপ প্রাইভেসি নিয়ে একটি ছোট্ট টুইট করে, আরেকটু এটাই বাজিমাত করে যায় সিগন্যাল।তিনি লেখেন হোয়াটসঅ্যাপের প্রাইভেসি পলিসিকে মাথায় রেখে আমি সিগনাল অ্যাপ ব্যবহার করার পরামর্শ দেব। আর যেমন কথা তেমন কাজ, বলার সাথে সাথেই মানুষ হোয়াটস্যাপ আনইনস্টল করে সিগনাল অ্যাপ ইন্সটল করা শুরু করে দেয় যার ফলে একটা সময় সংস্থার কাছে প্রচুর পরিমাণে রিকোয়েস্ট আসতে থাকে, আর ভেরিফিকেশন লিংক পেতে একেবারে নাজেহাল অবস্থা হয়ে যায় গ্রাহকদের। তবে তার কিছুক্ষণ পরেই সবকিছু ঠিক করে আবার কামব্যাক করে সিগন্যাল।