জল্পনার মাঝেই হুগলি রিভার ব্রিজ কমিশনার্সের চেয়ারম্যান পদ থেকে ইস্তফা দিলেন শুভেন্দু অধিকারী

13
জল্পনার মাঝেই হুগলি রিভার ব্রিজ কমিশনার্সের চেয়ারম্যান পদ থেকে ইস্তফা দিলেন শুভেন্দু অধিকারী

তৃণমূল নেতা শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে রাজনৈতিক মহলে জল্পনার রেশ যেন কাটছেই না। দীর্ঘদিন ধরেই শুভেন্দু অধিকারী তার রাজনৈতিক জীবনে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে বিতর্ক জিইয়ে রেখেছেন। এবার সেই বিতর্ক আরো বেশ কয়েকগুণ বেড়ে গেল যখন তিনি হুগলি রিভার ব্রিজ কমিশনার্সের চেয়ারম্যান পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে বসলেন। তার বদলে উক্ত পদের দায়িত্বভার সামলাতে এগিয়ে এলেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই তৃণমূলের অভ্যন্তরে বেশ তরজা চলছে। বিগত কয়েকদিন ধরে তিনি যে ক’টি রাজনৈতিক সমাবেশে যোগদান করেছেন, তার প্রতিটি ক্ষেত্রেই তৃণমূল দলের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন তিনি। শুধু তাই নয়, তার আয়োজিত রাজনৈতিক সমাবেশে তৃণমূলের ব্যানারও এখন আর দেখা যায় না। শুভেন্দু অধিকারীর স্পষ্ট বক্তব্য, তিনি দলত্যাগে ইচ্ছুক নন। তবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং প্রশান্ত কিশোরের নেতৃত্বাধীন থেকেও কাজ করতে রাজি নন।

উল্লেখ্য, ঘটনার গুরুত্ব বুঝে মধ্যস্থতার জন্য এগিয়ে এসেছেন সৌগত রায়সহ অন্যান্য হেভিওয়েট তৃণমূলীয় নেতারা। তারা আলোচনার মাধ্যমেই বিষয়টি স্বাভাবিক করে নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন। সূত্রের খবর, শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠকে বসছেন তৃণমূলীয় নেতারা। এরই মাঝে শুভেন্দু অধিকারীর এমন পদক্ষেপ স্বভাবতই রাজনৈতিক মহলের গুঞ্জন আরও বাড়িয়ে দিল।

শুভেন্দু অধিকারী তৃণমূল দল ত্যাগ করে শীঘ্রই বিজেপি দলে যোগদান করতে চলেছেন, রাজনৈতিক মহলের সর্বত্রই এমন গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। উল্লেখ্য, সম্প্রতি বাঁকুড়া সফরে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দল ত্যাগে ইচ্ছুক দলীয় কর্মীদের প্রতি হুঁশিয়ারি জারি করে বলেছেন, কে কোথায় কার সঙ্গে তলে তলে যোগাযোগ রাখছেন, তার সমস্ত তথ্য রয়েছে তার কাছে। মুখ্যমন্ত্রী প্রত্যেকের উপর নজর রাখছেন। ঘটনা ঠিক একদিন পরেই শুভেন্দু অধিকারী এহেন পদক্ষেপ তার দলত্যাগের সম্ভাবনাকে আরও উসকে দিল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।