দেশের সাত জন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, ২৫ জন সাংসদ এবং বিধায়ক করোনায় আক্রান্ত

4
দেশের সাত জন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, ২৫ জন সাংসদ এবং বিধায়ক করোনায় আক্রান্ত

১৪ই সেপ্টেম্বর থেকে সংসদের বাদল অধিবেশন শুরু হলো। করোনা মহামারীর পরিস্থিতিতে সংসদে অংশগ্রহণকারী প্রত্যেক সাংসদ এবং কর্মীর করোনা টেস্ট বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। সেইমতো ১৩ এবং ১৪ই সেপ্টেম্বর প্রত্যেক সদস্যের করোনা টেস্ট করানো হয়। সম্প্রতি, সেই টেস্ট রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে। রিপোর্টে দেখা গেল, ১৭ জন সাংসদ করোনা পজিটিভ।

সূত্রের খবর, আক্রান্ত সাংসদের মধ্যে বেশিরভাগই বিজেপি কর্মী। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ১৭ জনের মধ্যে ১২ জন বিজেপি সাংসদ রয়েছেন। বাকিদের মধ্যে দুইজন ওয়াইএসআর কংগ্রেসের সদস্য, একজন আরএলপি সদস্য এবং এক জন ডিএমকে সদস্য বলে জানা গেছে। সম্প্রতি, বালুরঘাটের বিজেপি সাংসদ সুকান্ত মজুমদার একটি টুইট বার্তায় নিজের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ করেন।

বর্তমানে, লোকসভা এবং রাজ্যসভার মিলিয়ে সংসদের মোট সদস্য সংখ্যা ৭৬৫ জন। এদের মধ্যে আবার ২০০ জনের বয়সই ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সতর্কবার্তা অনুযায়ী, ৬৫ বছরের বেশি বয়সীদেরই আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবথেকে বেশি। উল্লেখ্য, সাধারণ মানুষের পাশাপাশি দেশের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরাও ইদানিং করোনায় বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন।

ইতিমধ্যেই দেশের সাত জন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, ২৫ জন সাংসদ এবং বিধায়ক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে। শুধু তাই নয়, বেশ কয়েকজন বিধায়ক এবং মন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলেও খবর পাওয়া গেছে। করোনা আক্রান্ত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও। তাই সাংসদদের সুরক্ষার সাথে কোন আপোষ করতে রাজি নয় সংসদ। প্রত্যেক সদস্যের সিট একে অন্যের সাথে পলিকার্বনেট শিট দিয়ে পৃথক করা হয়েছে বলে জানা গেছে। সংসদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার দিকে সম্পূর্ণ নজর দেওয়া হয়েছে।