সম্পত্তির লোভে 30 বছরের যুবতী সেজে বিয়ের মন্ডপে ৫৪ বছর বয়সী একজন প্রৌঢ়া

7
সম্পত্তির লোভে 30 বছরের যুবতী সেজে বিয়ের মন্ডপে ৫৪ বছর বয়সী একজন প্রৌঢ়া

তৃতীয় বার বিয়ে করার জন্য বিউটি পার্লারের মেকআপ করিয়ে 30 বছরের যুবতী সেজে বিয়ের মন্ডপে বসতে গিয়েছিলেন একজন মহিলা। পাত্রের পরিবারের তরফ থেকে কেউ টের পাননি পাত্রী আসলে ৫৪ বছর বয়সী একজন প্রৌঢ়া। তবে শেষমেষ শেষ রক্ষা হলো না। বিয়ের পর আধার কার্ড ধরিয়ে দিল তার আসল বয়স এবং পরিচয়।

ঘটনাটি ঘটেছে অন্ধপ্রদেশের তিরুপতি জেলায়। সেখানে ফোনের মাধ্যমে উভয়পক্ষের যোগাযোগ হলেও পাত্রীকে দেখার জন্য পৌঁছে যায় পাত্রের পরিবার। তাকে সামনাসামনি দেখে কেউ বুঝতেই পারেননি তার আসল বয়স। কারণ তিনি পার্লারে গিয়ে মেকআপ করিয়ে এসেছিলেন।

বিয়ের পাকা কথা হয়ে যাওয়ার পর তাদের বিয়েটাও হয়ে যায়। কিন্তু বিয়ের কয়েক দিন পর থেকেই সমস্যা দেখা দেয়। তার নামে সমস্ত সম্পত্তি লিখে দেওয়ার জন্য শাশুড়ি এবং স্বামীর উপর চাপ দিতে শুরু করেন ওই মহিলা। এমনকি শাশুড়িকে তিনি বাড়ি থেকে বের করে দেন।

স্ত্রীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে তার নামে সম্পত্তি লিখে দেওয়ার জন্য আধার কার্ড চেয়েছিলেন তার স্বামী। কিন্তু আধার কার্ড হাতে পাওয়ার পর তার মাথায় হাত পড়ে। সেখানে তার আসল বয়স দেখা যায় এবং সন্দেহ হলে তিনি পুলিশের দ্বারস্থ হন। এরপর জানা যায় ওই মহিলা আরো একবার বিয়ে করেছিলেন এবং তার দুই মেয়ে রয়েছে যাদের বিয়ে হয়ে গিয়েছে। সম্পত্তির লোভে পড়েই তিনি আবার বিয়ে করেন।