দেখে নিন এই প্রাণী বা মানুষদের অনিচ্ছাকৃতভাবেই গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম উঠেছে

6
দেখে নিন এই প্রাণী বা মানুষদের অনিচ্ছাকৃতভাবেই গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম উঠেছে

গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড, এই একটি বইতে একবার নিজের নাম দেখার জন্য মানুষ বহুদিন ধরে পরিশ্রম করে আসেন। কখনো দাঁত দিয়ে গাড়ি টানা হোক কিংবা পা দিয়ে ছেপে তরমুজ ভেঙে ফেলা হোক, এমন অনেক অদ্ভুত কাজ করে ইতিমধ্যে বহু মানুষ গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড নিজের নাম তুলে ফেলেছেন সফলভাবে।

তবে বিশ্বের মধ্যে এমন কয়েকজন ব্যক্তি অথবা প্রাণী রয়েছে যাদের অনিচ্ছাকৃতভাবেই গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম উঠেছে। আজ শুনে নেওয়া যাক তাদের কথা।

১) সবথেকে বেশি অলিম্পিকে উপস্থিত থাকার রেকর্ড: হ্যারি নেলসন নামে একজন ব্যক্তি তার জীবনে সবথেকে বেশি অলিম্পিকে দর্শক হিসেবে থাকার রেকর্ড করে ফেলেন। যদিও এই রেকর্ড করার কোন ইচ্ছা ছিল না। ১৯৩২ সালে থেকে ২০১৬ পর্যন্ত প্রত্যেকটি অলিম্পিকে তিনি দর্শক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

২) সবথেকে বেশি দিন মহাশূন্যের থাকার রেকর্ড: ২০০৪ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সবথেকে বেশি মহাশূন্যে থাকার জন্য ইতিমধ্যে গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম উঠে যায়। এই বিশ্ব রেকর্ড করার তার কোনো রকম ইচ্ছে ছিল না, শুধুমাত্র নিজের কাজকে ভালোবেসে তিনি সবথেকে বেশি দিন মহাশূন্যে থাকার রেকর্ড করে ফেলেছেন।

৩) সবথেকে সুন্দর ব্যাডম্যানের পোশাক তৈরি র রেকর্ড: জুলিয়ান জ্যাকলিন নামে একজন ব্যক্তিহুবহু ব্যাটম্যানের পোশাক তৈরি করার জন্য ইতিমধ্যেই চলে এসেছেন গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড এর খাতায়। শুধুমাত্র পোশাক নয়, সিনেমা তে ব্যবহৃত ব্যাটম্যান এর সমস্ত গ্যাজেট তিনি নিজের মতো করে বানিয়ে ফেলেছেন। আইল্যান্ডের অধিবাসী এই ব্যক্তির নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধেই অজান্তে গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম উঠেছে।

৪) সবথেকে সুন্দর এবং তাড়াতাড়ি অপরাধীদের অবয়বও তৈরি করা: লুইস গিভেন নামে একজন ভদ্রমহিলা বর্তমানে ব্যবহৃত কোন রকম সফটওয়্যার ছাড়া শুধুমাত্র পেন্সিল দিয়ে হুবহু অপরাধীদের ছবি এঁকে দেন তিনি। অনেক সময় অপরাধের সময় উপস্থিত থাকা ব্যক্তিদের চোখে দেখা এক ঝলক একটি অভাবের বর্ণনা শুনে হুবহু তিনি একে দিতে পারেন সেই ব্যক্তির মুখ। ২০১৭ সাল থেকে এখনো পর্যন্ত ৭৫৩ জনঅপরাধীকে ধরিয়ে দিয়ে ইতিমধ্যেই নাম তুলে ফেলেন গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে।

৫) সবথেকে বেশি লোম যুক্ত ভেড়া: অস্ট্রেলিয়াতে একটি বিশালাকৃতির লোমযুক্ত ভাড়া পাওয়া গেছিল। আমরা সকলে জানি কিছু মাস বাদে বাদে ভেড়ার লোম ছেটে ফেলে দেওয়া হয়। কিন্তু কোনভাবেই ভেরাটি বহুদিন লোকচক্ষুর আড়ালে থাকা এর পশম কাটা হয়নি। ফলে দৈত্যের আকারে পরিণত হয়েছিল সেটি। তবে যখন তার সমস্ত পশম কেটে দেওয়া হলো তখন সেই পশমের মোট ওজন হয়েছিল ৪০ কেজি। এটিও গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড নথিভূক্ত হয়েছে একসাথে সব থেকে বেশি পশম দেবার ভেড়ার নামে।