স্কুল বন্ধ! কীভাবে হবে ছাত্রছাত্রীদের মূল্যায়ন? বিকল্প পথের অনুসন্ধান দিচ্ছেন শিক্ষকেরা

15
স্কুল বন্ধ! কীভাবে হবে ছাত্রছাত্রীদের মূল্যায়ন? বিকল্প পথের অনুসন্ধান দিচ্ছেন শিক্ষকেরা

দীর্ঘ প্রায় এক বছরের বেশি সময় ধরে বন্ধ স্কুলের পঠন পাঠন। প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণীর পড়ুয়াদের জন্য এখনো পর্যন্ত তেমনভাবে কোনো গাইডলাইন প্রকাশ করতে পারেনি প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। ছাত্র-ছাত্রীদের মূল্যায়ন হবে কিভাবে? তাদের ভবিষ্যৎ কী? নতুন শ্রেণিকক্ষে ওঠার সময় তো পেরিয়ে গেল! এই প্রশ্নগুলি আপাতত ঘুরছে শিক্ষক এবং অভিভাবকদের মনে।

বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে শিক্ষকদের একাংশ “মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক” এর বিকল্প পথের অনুসন্ধান দিচ্ছেন। তাদের দাবি, এই মুহূর্তে যদি “মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক”ও ছাত্র-ছাত্রীদের দেওয়া যেত তাহলে তাদের মূল্যায়ন করা সম্ভব হতো। করোনাকালে অনলাইনে পড়াশোনা চালানো হলেও ছাত্রছাত্রীরা বাড়িতে কে কতটা পড়াশোনা করছে তা আন্দাজ করা সম্ভব হচ্ছে না।

শিক্ষকেরা জানাচ্ছেন, গত বছরের মে মাস নাগাদ ছাত্রছাত্রীরা বাড়িতে কেমন ভাবে পড়াশোনা করছে তা জানার জন্য বিভিন্ন স্কুলের তরফ থেকে মডেল প্রশ্নপত্র বানিয়ে তা মিড ডে মিল নিতে আসা অভিভাবকদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। বাড়িতে পড়ুয়ারা সেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে আবার অভিভাবকদের হাত দিয়েই স্কুলে পাঠিয়ে ছিলেন। এইভাবে পড়ুয়াদের প্রস্তুতি কিছুটা হলেও আন্দাজ করা সম্ভব হয়েছিল।

তবে এই দফায় এখনো পর্যন্ত তেমনটা হচ্ছে না। শিক্ষক সংগঠনের একাংশের তরফ থেকে ইতি মধ্যেই শিক্ষা দপ্তরের কাছে মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্কের আবেদন পাঠানো হয়েছে। স্কুল বন্ধ থাকাকালীন কি কি করতে হবে আর কি কি নয় তা নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের আয়োজন করুক শিক্ষা দপ্তর। এমনটাই চাইছেন শিক্ষকদের একাংশ।