আস্ত একটি গ্রামকে খাওয়ানোর দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিলেন সনু সুদ

23
আস্ত একটি গ্রামকে খাওয়ানোর দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিলেন সনু সুদ

গত বছর থেকেই যে সব মানুষেরা মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য এগিয়ে এসেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন সনু সুদ। করোনা র সময় তীব্র সংকটে যখন বারবার মানুষের হাহাকার মানুষকে শেষ করে দিয়েছে তখন মানুষের পাশে ভগবানের মতো দাঁড়িয়েছে এই মানুষটি। গতবছর বহু মানুষকে বাড়ি পাঠানোর ব্যবস্থা করেছিলেন তিনি। কিছুদিন আগে করণা আক্রান্ত হয়ে বন্দী হয়েছিলেন তিনি।

সুস্থ হয়ে আরো একবার ময়দানে নেমে পড়েছে এই অভিনেতা। আস্ত একটি গ্রামের অন্নদাতার ভূমিকায় দেখতে পাওয়া যাচ্ছে তাকে এবার। মধ্যপ্রদেশের মালঅয়া অঞ্চলের প্রত্যন্ত গ্রাম নিমাচের গোটা গ্রাম কে এক বেলা খাওয়ানোর দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিলেন তিনি।

সম্প্রতি একটি রিয়েলিটি শো তে বিচারক হিসেবে গিয়েছিলেন এই অভিনেতা। সেখানে এক প্রতিযোগী কাতর স্বরে তার গ্রামের কথা জানিয়েছিলেন তাকে। মধ্যপ্রদেশ সরকার ইতিমধ্যেই লকডাউন এর সময়সীমা বাড়িয়ে ৭ মে পর্যন্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই অবস্থায় দিন আনা দিন খাওয়া এই মানুষগুলোর অবস্থা খুবই শোচনীয় হয়ে পড়েছে। নিজের গ্রামের এই কথা বলতে গিয়ে অভিনেতার সামনে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন রিয়্যালিটি শো-এর প্রতিযোগি উদয়।

এরপরে অভিনেতা বলেন যে, আমি তোমার মাধ্যমে তোমার সমস্ত গ্রামবাসীকে বলতে চাই যে, ঠিক যতদিন লকডাউন চলবে ততদিন আমি প্রত্যেক গ্রামবাসীর রেশনের ব্যবস্থা করে দেব। তুমি কাউকে চিন্তা করতে বারণ করো। আমি থাকলে তোমার গ্রামে কেউ অভুক্ত থাকবে না।

গত বছর থেকেই সনু সুদ এর এই সমস্ত কার্যকলাপ তাকে নতুন জনপ্রিয়তার শিখরে পৌঁছে দিয়েছে। মানুষের অন্ন এর পাশাপাশি শিক্ষার ব্যবস্থা করে দিয়েছে এই অভিনেতা। যে সমস্ত শিশুদের অভিভাবক মারা যাচ্ছেন এই মহামারিতে, তাদের সমস্ত শিক্ষার দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন তিনি।

কিছুদিন আগে ফোনে ক্রমাগত আসতে থাকা সাহায্য প্রার্থনা ভিডিও প্রকাশ করে অভিনেতা জানিয়েছিলেন যে, আমি মন থেকে দুঃখিত আমি সবার কাছে পৌঁছাতে পারছিনা। তবে যতখানি সম্ভব চেষ্টা করছি পাশে দাঁড়ানোর। যাদের কাছে পৌঁছোতে পাচ্ছি না তাদের থেকে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।