“রাধে”র রেটিং কম পরায় ক্ষোভ প্রকাশ করলেন স্বয়ং সালমান খানের বাবা সেলিম খান

10

প্রতিবছর ঈদের সময় একটি করে সিনেমা আমাদের সকলকে উপহার দেন সালমান খান। তবে করণা মহামারীর জন্য এই বছর অনেকটাই পিছিয়ে দিতে হয়েছিল তাকে তার সিনেমা মুক্তির সময়। চলতি বছরই মুক্তি পেলেও সালমান খান অভিনীত ছবি “রাধে”। প্রথম থেকেই এই ছবিটি বিতর্কে শিরোনামে উঠেছিল। ছবির মান যে এত নিচে নেমে যেতে পারে তা কেউ কল্পনাও করতে পারেনি।

ছবি রেটিং ও সঙ্গে সঙ্গে পড়েছে অনেকটা। একসময় এই নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন স্বয়ং সালমান খান। ফিল্ম সমালোচকদের থেকে শুরু করে দর্শকদের কেউই খুশি হয়নি এই সিনেমাটি দেখে। তবে এবার সালমান খান অভিনীত সিনেমা নিয়ে সমালোচনায় মুখর হলেন তার বাবা সেলিম খান।

বলিউডের অন্যতম চিত্রনাট্যকার হিসেবে সেলিম খানের সাফল্য যে কতটা তা আমরা অনেকেই জানি। তাঁর মন্তব্যের যে একটি মূল্য রয়েছে সেটাও বলাই বাহুল্য। সদ্য দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে সালমান খানের বাবা সেলিম খান জানিয়েছেন যে, রাধে সিনেমাটি মোটেই পছন্দ হয়নি তার। সাক্ষাৎকারে তিনি আরও জানিয়েছেন যে, সালমান খান সিনেমা দাবাং ৩ ও বজরাঙ্গি ভাইজান অনেকটাই আলাদা ছিল।

ছবি হিসেবে রাধে একেবারেই ভালো নয়। তাঁর কথায়, কমার্শিয়াল ছবির একটি দায় থাকে। যতক্ষণ না পয়সা ফেরত পাওয়া যায় ততক্ষণ একটি দায়বদ্ধতা থাকে। শিল্পী প্রযোজক ডিস্ট্রিবিউটর এক্সিবিটর এবং শেয়ারের প্রত্যেক অংশীদারের টাকা ফেরত পাওয়া উচিত। তবেই সেই সিনেমার ব্যবসা হয়। সেদিক থেকে দেখতে গেলে এই সিনেমাটি সাফল্য একেবারেই নেই। তবে এক্ষেত্রে সালমান খানের তেমন দোষ নেই। বর্তমানে ইন্ডাস্ট্রিতে ভালো গল্পকার এবং চিত্রনাট্যের অভাব রয়েছে প্রচন্ড।

আজকাল চিত্রনাট্যেকরা তেমনভাবে হিন্দি অথবা উর্দু ভাষায় সাহিত্য নিয়ে চর্চা করে না। বাইরে থেকে কোন কিছু দেখলেই লেখা শুরু করে দেন তারা। জঞ্জির, ভারতীয় সিনেমার একটি মাইলফলক ছিল। আমাদের নতুন দিশা দেখিয়েছিল এই সিনেমাটি। এত বছর পরেও ইন্ডাস্ট্রি সেলিম জাভেদ জুটির কোন বিকল্প খুঁজে পায়নি। তাই শুধুমাত্র সালমান খানের পক্ষে কিছু করা হয় একেবারেই সম্ভব নয়।