সম্প্রতি একটি কুমির আটক করে বন দপ্তরের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবী করল উত্তরপ্রদেশের মিদানিয়া গ্রামের বাসিন্দারা

4
সম্প্রতি একটি কুমির আটক করে বন দপ্তরের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবী করল উত্তরপ্রদেশের মিদানিয়া গ্রামের বাসিন্দারা

কিছুদিন আগে উত্তরপ্রদেশের মিদানিয়া গ্রামে সম্ভবত বন্যার জলে ভেসে একটি কুমির ঢুকে পড়েছিল। এই গ্রামটি দুধওয়া ব্যাঘ্র সংরক্ষণ প্রকল্পের লাগোয়া লখিমপুর খেড়ি থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। কুমিরটিকে গ্রামের একটি পুকুরে সাঁতার কাটতে দেখা যায়। যা দেখে আতঙ্ক এবং চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয় গ্রামে। তবে এরপরেই একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন গ্রামবাসীরা। গ্রামবাসীরা ওই কুমিরটিকে পণবন্দি করে ফেলেন। কুমিরটিকে বন দপ্তরের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন গ্রামবাসীরা।

দুধওয়া ব্যাঘ্র সংরক্ষণ প্রকল্পের অতিরিক্ত এলাকার ডেপুটি ডিরেক্টর অনিল প্যাটেল জানিয়েছেন, কুমিরটাকে মুক্ত করতে গ্রামবাসীরা ৫০ হাজার টাকা চেয়েছে। গ্রামবাসীরা বলেছে, কুমিরটাকে উদ্ধার করার জন্য এই টাকা নাকি ওদের প্রাপ্য। তিনি আরও বলেন, গ্রামবাসীদের বোঝাতে আমাদের অনেক সময় লেগে যায়। পুলিশ এসে ওদের বুঝিয়ে উঠতে পারে না। শেষ পর্যন্ত এই জন্য ওদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ করা হবে, এই হুমকি দিয়ে তবে ওদের কাছ কুমিরটাকে ছাড়িয়ে আনতে পারেন বলে জানান তিনি।

তিনি আরও জানিয়েছেন, মিদানিয়া গ্রাম থেকেই তাঁদের কাছে ফোন এসেছিল যে, ওখানে গ্রামের পুকুরে একটা কুমির দেখা গিয়েছে। যে কারণে স্থানীয় শিশু ও গবাদি পশুদের বিপদ হতে পারে। এরপর ফরেস্ট রেঞ্জার অনিল শাহের নেতৃত্বে সেখানে বন দফতরের টিম পৌঁছয়। কিন্তু ততক্ষণে অন্ধকার হয়ে গিয়েছিল বলে বন আধিকারিকরা সেদিনের মতো কাজ বন্ধ রেখেছিল। পরের দিন সকালে গ্রামবাসীরা বন দফতরে ফোন করে জানান যে, কুমিরটিকে তাঁরাই উদ্ধার করে ফেলেছেন।

গ্রামে আবার বনকর্মীরা গেলে, বিক্ষোভের মুখে পড়েন তাঁরা। গ্রামবাসীরা তাঁদের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। গ্রামবাসীরা বলেছেন, অন্তত ১৫ জন মিলে নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কুমিরটিকে তাঁরা উদ্ধার করেছেন, তাই এই টাকা তাঁদের প্রাপ্য। যারা কুমিরটিকে উদ্ধারে যুক্ত ছিলেন, তাদের নামের একটি তালিকা বনকর্মীদের হাতে তুলে দেন গ্রামের প্রধান। জানিয়ে দেওয়া হয়, টাকা না দিলে তাঁরা কুমির তাঁরা ছাড়বেন না। পরে পুলিশ এসে গ্রামবাসীদের বলে যে, কুমিরটিকে আটকে রাখলে গ্রামবাসীদের গ্রেফতার করা হবে, তখন কুমিরটিকে বনকর্মীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়।