চাকরি প্রদানের নিরিখে দেশে অনেকটাই এগিয়ে গেল রিলায়েন্স

7
চাকরি প্রদানের নিরিখে দেশে অনেকটাই এগিয়ে গেল রিলায়েন্স

এবার চাকরি প্রদানে দেশের বড় বড় সংস্থাকে পিছনে ফেলে এগিয়ে গেল রিলায়েন্স। বর্তমানে রিলায়েন্সের মোট কর্মচারীর সংখ্যা ৩ লাখ ছাপিয়ে গেছে। কর্মসংস্থানের দিক থেকে স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া এবং কোল ইন্ডিয়া কে পেছনে ফেলে দিয়েছে রিলায়েন্স। স্বাভাবিকভাবেই এটি রিলায়েন্সের কাছে একটি বিশাল বড় সাফল্য। চাকরি দেওয়া নিজেকে বর্তমানে দেশের দুই নম্বর কোম্পানি হিসেবে উঠে এসেছে রিলায়েন্স। তবে এবার প্রশ্ন হল এক নম্বরে কে রয়েছেন?? উত্তরটা হলো টাটা কনসালটেন্সি সার্ভিস বা টিসিএস। এই চাকরি দেওয়ার ব্যাপারে আপাতত সকলকে ফেলে এক নম্বরে পৌঁছে গেছে টাটা।

একের পর এক সরকারি অথবা রাস্তায় তো প্রতিষ্ঠানকে ক্রমশ পিছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছে বেসরকারি মাধ্যমগুলি। কর্মসংস্থানের ভিত্তিতে সরকারি বা রাষ্ট্রায়ত্ত বিভিন্ন সেক্টর কে পেছনে ফেলে দেওয়া খুব একটা ভালো লক্ষণ নয়। দেশে দুই বৃহত্তম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠান কিভাবে টেক্কা দিয়ে বেরিয়ে যাওয়া সরকারের কাছে কি আদৌ খুব একটা খুশির ব্যাপার? দেশের শিল্প মহলের যে বর্তমান চিত্র তাকে দেখা যাচ্ছে, দুই প্রতিদ্বন্দ্বী গোষ্ঠী আম্বানি এবং আদানি প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী গোষ্ঠী হলেও চাকরি দেওয়া নিরিখে এগিয়ে রয়েছে আম্বানি এবং টাটা। বিচারের মধ্যে কেবলমাত্র tcs স্থান পেয়েছে এই তালিকায়। বাকিরা আপাতত পেছনে রয়েছে।

ভারতের শিল্প মহলের দিকে তাকালে বোঝা যাবে সম্পত্তির তালিকা সহ ব্যবসায়ীক নিজেকে আম্বানি আদানি তুলনায় বেশ পিছিয়ে পড়েছেন কিন্তু চাকরি দেওয়া নিজেকে আদানিকে অনেক বিছিয়ে দিয়েছেন মুকেশ আম্বানি। দেশের সর্বোচ্চ স্তরের রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাকে পিছনে ফেলে এগিয়ে গেছে আম্বানি, যা নিঃসন্দেহে এটি গর্বের বিষয়।