স্ত্রীর মর্যাদা চেয়ে শ্বশুর বাড়ির সামনে ধর্নায় অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকার

9
স্ত্রীর মর্যাদা চেয়ে শ্বশুর বাড়ির সামনে ধর্নায় অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকার

হরিশ্চন্দ্রপুর,২৮ এপ্রিল: এক বছর ধরে টলিউড নায়ক নায়িকাদের মতো চুটিয়ে প্রেম করেছে প্রেমিক-প্রেমিকা এবং পার্ক, হোটেল ও রেস্টুরেন্টে আড্ডা দিয়ে বেরিয়েছে তারা। মাস খানেক আগে তারা আবার গোপনে বিয়েও করে বলে দাবি প্রেমিকার। বিয়ের পরেও স্বামীর ঘরে ঠাঁই হয়নি অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকার। শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাঁকে বাড়ির বউ বলে স্বীকৃতি দিতে নারাজ। তাই স্ত্রীর মর্যাদা চেয়ে প্রেমিকের বাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন প্রেমিকা। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার হরিশ্চন্দ্রপুর-১ নং ব্লকের রশিদাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েতের বিরুয়া-আজিমপুর গ্রামে। এই ঘটনায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে রশিদাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রেমিকার নাম তাবাসুম পারভিন (২১)। বাড়ি হরিশ্চন্দ্রপুর-১ নং ব্লকের মহেন্দ্রপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের গাঙ্গনদীয়া মসজিদ পাড়া এলাকায়। প্রেমিকের নাম আরব আলী (২১)। বাড়ি হরিশ্চন্দ্রপুর-১ নং ব্লকের রশিদাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েতের বিরুয়া-আজিমপুর গ্রামে।

প্রেমিকা তাবাসুম জানান, মাসির ছেলের সঙ্গে তার প্রথম বিয়ে হয়েছিল। মা-বাবার সঙ্গে দিল্লিতে থাকার সময় আরবের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মাসির ছেলেকে ডিভোর্স দিতে বাধ্য করে প্রেমিক আরব। এরপর থেকে তারা দীর্ঘ এক বছর ধরে স্বামী স্ত্রীর মতো শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। প্রেমিক কথা দিয়েছিল, ভালবাসার জন্য জীবন দিয়ে দিবে তবুও তাকে ছেড়ে কোথাও যাবে না। তাকে বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দিয়ে বাড়িতে নিয়ে আসবে।

এমনকি তারা এক মাস আগে গোপনে শরিয়ত মোতাবেক চাঁচলে বিয়েও করে ফেলেন। এখন সে এক মাসের অন্তঃসত্ত্বা রয়েছেন।বিয়ের পরও নানা অছিলায় আরব তাঁকে তাঁর বাড়িতে নিয়ে যাননি। বারবার শ্বশুরবাড়ি যেতে চাইলেও তাঁকে প্রায় জোর করে বাপের বাড়িতে থাকতে বাধ্য করেন আরব। অবশেষে বুধবার সকালে আরবের বাড়ির সামনে ধর্নায় বসেন তাবাসুম। প্রেমিক বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায় বলে খবর। শ্বশুরবাড়িতে ঢুকতে চাইলে তাবাসুমকে রাতে প্রচন্ড মারধর করে বলে অভিযোগ। অসুস্থ হয়ে পড়েন সে। রাত দশটা নাগাদ বাড়ির নিয়ে আসেন তাবাসুমের পরিবারের লোকেরা।

ছেলের মা জানান, তাদের বিয়ে সম্পর্কে তিনি কিছুই জানেন না। ছেলে কোথায় পালিয়ে গিয়েছে সে আদৌ জানে না।