২ বছর পর্যন্ত পিছিয়ে যেতে পারে ই এম আই স্হগিত রাখার মেয়াদঃ সুপ্রিম কোর্ট

30
২ বছর পর্যন্ত পিছিয়ে যেতে পারে ই এম আই স্হগিত রাখার মেয়াদঃ সুপ্রিম কোর্ট

এই করোনা পরিস্হিতির মধ্যে সরকার ব্যাঙ্কের ই এম আই দেওয়ার সময়, বৃদ্ধি করে গ্রাহকদের একটু সুবিধা দিতে চেয়েছিল। কিন্তু সম্প্রতি এই ই এম আই নিয়ে কোনো ভালো খবর শোনাতে পারল না সরকার। কারণ আজ মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, হয়তো সরকার ছড়ার ই এম আই স্হগিত রাখার মেয়াদ ২ বছর পর্যন্ত পিছিয়েও দিতে পারে। এমনটাই জানালো সুপ্রিম কোর্ট ও সাথে আগামীকাল এই শুনানী হবে বলেও জানানো হল সুপ্রিম কোর্টের তরফ থেকে। এই সিদ্ধান্ত যদি সত্যি হয় তাহলে সাধারণ মানুষ অনেকটাই স্বস্তির মধ্যে থাকবে বলে জানা যাচ্ছে।

আসলে আজ মঙ্গলবার আজ সুপ্রিম কোর্টে কেন্দ্র এবং রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তরফ থেকে একটি যৌথ উদ্যোগ নেওয়া হয়। আর সেটা সলিসিটার জেনারেল তুষার মেহতা জানায়। তিনি বলেন বর্তমান করোনা পরিস্হিতির কথা মাথায় রেখে এই দুঃসাহসিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে সাধারণ মানুষের জন্য। ইতিমধ্যে এই বিষয় নিয়ে কথা বার্তা হয়ে গেছে কোন সেক্টর সব থেকে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সেটা নিয়েই বিষদ ভাবে আলোচনা করা হচ্ছে। এখনো একেবারে চূড়ান্ত না হলেও যে, এই সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারে সরকার সেটা স্পষ্ট বোঝাই যাচ্ছে।

তবে এই সিদ্ধান্তের ওপরে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে আসলে এই দুই বছর ই এম আই স্হগিত করা হলে কি ব্যাঙ্ক সেই ই এম আই এর ওপরে সুদ খাটাবে না ? এটা নিয়েই গভীর প্রশ্ন। তাই এখন চিন্তা ভাবনা চলছে। আর এটা নিয়েই আগামীকাল বুধবার শীর্ষ আদালতে ঘোষণা করা হবে।

আসলে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর সাধারণ মানুষের কথা ভেবেই ২৭ মার্চ ই এম আই স্হগিত রাখার কথা ঘোষণা করে। যাতে সাধারণ মানুষ একটু সোজা হয়ে, চাঙ্গা হয়ে দাঁড়াতে পারে। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর শক্তিকান্ত দাস, তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন, দেশের আর্থিক অবস্থা চাঙ্গা করতে ও আর্থিক বৃদ্ধি সচল রাখতে ও দেশবাসীকে স্বস্তি দিতে এই পদক্ষেপ। কিন্তু তারপরেই দেখা যাচ্ছিল কিছু ব্যাঙ্ক সেই ই এম আই এর ওপরেই নিচ্ছিল সুদ। যেটা নিয়েই সবর সাধারণ মানুষ। আর তারপরেই সেটা নিয়ে মামলা দায়ের করা হয় সুপ্রিম কোর্টে। যার শুনানি আগামীকাল বুধবার।