“আপনার বন্ধুবৃত্তের লোকই আপনার একটা বইয়ের নামও মনে করতে পারবেন না” দেবাংশু ভট্টাচার্য

7
আপনার বন্ধুবৃত্তের লোকই আপনার একটা বইয়ের নামও মনে করতে পারবেন না

সোমবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিশেষ সম্মান দিয়েছে বাংলা আকাদেমি। মুখ্যমন্ত্রীকে বিশেষ বাংলা আকাদেমি পুরস্কার দেওয়ার প্রতিবাদে বাংলা আকাদেমির সম্মান ফেরাচ্ছেন সাহিত্যিক রত্না রশিদ বন্দ্যোপাধ্যায়।মুখ্যমন্ত্রীকে এই পুরস্কার দেওয়ার প্রতিবাদে মঙ্গলবার বর্ধমানের ভাঙাকুঠি এলাকার বাড়িতে সাংবাদিক বৈঠক করেন সাহিত্যিক রত্না রশিদ বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি জানান, বাংলা আকাদেমির সম্মান ফিরিয়ে দেওয়ার কথা। তবে, ফেসবুকে সাহিত্যিককে জবাব দিয়েছেন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক দেবাংশু ভট্টাচার্য। তিনি লিখেছেন, রত্নাদেবী, খুব ভুল না করলে আপনি গত বিধানসভা নির্বাচনে ‘নো ভোট টু বিজেপি’-র হয়ে সামাজিক মাধ্যমে সক্রিয় ছিলেন। মন্তব্যও করতেন। বিজেপি এলে আপনাদের অবস্থা কী হবে এই নিয়ে যারপরনাই আশঙ্কিত ছিলেন এবং থাকাটাই স্বাভাবিক। কারণ, সিপিএম আমলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ছিলেন আপনি আর পারিবারিকভাবে সিপিএমটাও করতেন। তাই জানেন কোনও স্বৈরাচারী আর শোষক শক্তি যখন ক্ষমতা পায়, তখন বিরুদ্ধ কণ্ঠের অবস্থা ঠিক কী হয়।

দেবাংশু এখানেই থামেননি। তিনি আরও লিখেছেন, যাঁকে এই সামান্য পুরস্কার দেওয়া আপনার সত্যের অপলাপ মনে হয়েছে তাঁর বই বেস্টসেলার। আর আপনার বন্ধুবৃত্তের নব্বই ভাগ লোকই আপনার একটা বইয়ের নামও মনে করতে পারবেন না। আপনার এই হঠকারী সিদ্ধান্তে পাওয়া দিন কয়েকের প্রচারের আলো আপনার ভবিষ্যৎ জীবনে কোনও আক্ষেপের কারণ যেন না হয় প্রার্থনা করি। অন্তত ছাপ ফেলা বা মনে রাখার মতো কিছু লিখুন যাতে পুরস্কার ফেরাবার বিতর্কের বাইরেও বাংলার মানুষ জানতে পারে, চিনতে পারে।