পাক-প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমা চাওয়া উচিৎঃ মিজিতো ভিনিতো

9
পাক-প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমা চাওয়া উচিৎঃ মিজিতো ভিনিতো

পাকিস্তানকে ফের কড়া জবাব ভারতের। কাশ্মীর নিয়ে আন্তর্জাতিক মঞ্চে পাকিস্তানকে কড়া হুঁশিয়ারি ভারতের।” যতক্ষণ না পর্যন্ত সীমান্তে সন্ত্রাস বন্ধ হবে ততক্ষণ পর্যন্ত কোনো আলোচনায় সম্ভব হবে না”। রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সভায় ভারতীয় প্রতিনিধি এরকমই বক্তব্য। রাষ্ট্রসঙ্ঘে এর আগে থেকে কাশ্মীর নিয়ে নানা রকম মন্তব্য করেছে পাক-প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ।

পাক প্রধানমন্ত্রীর এই ধরনের বক্তব্যে কার্যত পাল্টা জবাব দিয়েছে ভারতের ফার্স্ট সেক্রেটারি মিজিতো ভিনিতো। তিনি জানান,” আলোচনার আগে জম্মু-কাশ্মীরে সন্ত্রাস বন্ধ করুক। আগে ইসলামাবাদ রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সভায় জানান ভারতের বিরুদ্ধে সব সময় মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে”।

রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সভায় পাকিস্তানের সংখ্যালঘুদের নিয়েও কথা বলে ভারত। মিজিতো ভিনিতো বলেন, “যখন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের হাজার হাজার তরুণীকে অপহরণ করে নেওয়া হয়, তখনই সেটা নিয়ে কিছু বলা হয় না। আন্তর্জাতিক মঞ্চে সরাসরি মিথ্যে প্রচার করছে পাকিস্তান। এইরকম মিথ্যে প্রচার করার জন্য পাক-প্রধানমন্ত্রীর উচিত ক্ষমা চাওয়া।”

২০১৯ এর ৫ ই আগস্ট সংবিধানের ৩৭০ এবং ৩৫ এ ধারা বাতিল করে নরেন্দ্র মোদি সরকার। এই পদক্ষেপকে সরাসরি বেআইনি এবং একতরফা বলেই মন্তব্য করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী। তিনি রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সভায় মন্তব্য করে বলেন, এ রকম একটি পদক্ষেপের জেরে শান্তি প্রতিষ্ঠার কথা একবারও ভাবা যাচ্ছেনা। দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে ক্রমাগতই আঞ্চলিক উত্তেজনা বেড়ে চলেছে, পাক প্রধানমন্ত্রী এ ধরনের মন্তব্যের ওপর ভিত্তি করে কড়া জবাব দিয়েছে নয়াদিল্লি।

পাক প্রধানমন্ত্রীকে কড়া জবাব দেওয়ার জন্য ভারতীয় প্রতিনিধি সীমান্ত পার সন্ত্রাসের প্রসঙ্গ তোলেন এবং তিনি জানান,” জম্মু কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য একটি অঙ্গ। এই উপমহাদেশ গুলির মধ্যে শান্তি থাকা অত্যন্ত জরুরী কিন্তু সেটা সম্ভব তখনই হবে যখন ইসলামাবাদ সীমান্ত সন্ত্রাস বন্ধ করবে”।