ভারতে রফতানি বন্ধ হতে চলেছে পদ্মার ইলিশ

14
ভারতে রফতানি বন্ধ হতে চলেছে পদ্মার ইলিশ

কিছুদিন ধরেই খবরের শিরোনামে থাকছিল ভারতে আসতে চলেছে পদ্মা নদীর তাজা ইলিশ। বাঙালির মুখেও ছিল তৃপ্তির হাসি। সকলে পদ্মার ইলিশ খেতে পাওয়ার আশায় ছিল। কিন্তু এই আশায় জল ঢাললো বাংলাদেশের সুপ্রিমকোর্টের মাহমুদুল হাসান নামে এক আইনজীবী।

সংবামাধ্যম সূত্রে খবর মিলছে যে, হয়তো খুব তাড়াতাড়ি পদ্মার ইলিশ ভারতে রফতানি বন্ধ হতে চলেছে। কারণ বাংলাদেশের মাহমুদুল হাসান নামের ঐ আইনজীবী এই ইলিশ রফতানির কঠোর বিরোধিতা করছেন। তিনি একটি নোটিশ মারফত বাংলাদেশ সরকার শেখ হাসিনাকে জানান যে, বাংলাদেশের জাতীয় মাছ ইলিশ। অথচ বাংলাদেশের এই মাছের দাম অগ্নিমূল্য। এই মাছ চেয়েও বাংলাদেশের নিম্নবিত্ত পরিবারের মানুষেরা খেতেই পান না এত দাম বৃদ্ধির কারণে। অথচ সেখানে দেশের মানুষকে বঞ্চিত করে অন্য দেশে এই মাছ রফতানি করা উচিত হচ্ছে না বাংলাদেশ সরকারের। অবিলম্বে বন্ধ করা উচিত এই রফতানি।

বাংলাদেশে একটি সাধারণ ইলিশ এক কেজির মূল্য ১০০০-১২০০ টাকা। আর পদ্মার ইলিশ তো ১৫০০ টাকা ছুঁয়েছে। আর শুধু মাত্র ভারতীয়দের সাথে সুসম্পর্ক স্থাপনের জন্য বাংলাদেশ সরকার এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এটা তিনি সঠিক বলে মনে করছেন না।
এছাড়াও, ২০২৪ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের রফতানি নীতি অনুযায়ী ইলিশ মুক্তভাবে রফতানি যোগ্য নয়৷ ওই আইনজীবীর অভিযোগ, এমনিতেই পদ্মা থেকে সীমিত সংখ্যক ইলিশ মেলে৷ সেই ইলিশ ভারতে চলে যাওয়ায় দেশের বাজারে জোগান আরও কমছে৷ সেখানে শুধুমাত্র ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্কের কথা ভেবে বিশেষ অনুমতি দেয় বাংলাদেশ সরকার৷

সেই আইনজীবী এমন প্রস্তাবও দেন যে প্রয়োজনে ভারতীয়দের ইলিশের স্বাদ দেওয়ার জন্য দেশে ইলিশ উৎসব আয়োজন করা হোক। সেই পরামর্শও দেওয়া হয়েছে নোটিসে৷ তবে এখানেই শেষ নয় এই নোটিস পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে বাংলাদেশ সরকার ইলিশ রফতানি বন্ধ না করলে বিষয়টি নিয়ে হাইকোর্টে মামলা করার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন ওই আইনজীবী৷এমন কাজ তিনি মোটেই সমর্থন করছেন না তা তাঁর কথায় ও কাজে বুঝতে অসুবিধে হয়না। তবে শুধু শেখ হাসিনাকে নয় তিনি বাংলাদেশের বাণিজ্য, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, পররাষ্ট্র সহ বেশ কয়েকটি মন্ত্রক এবং সরকারের শীর্ষ আধিকারিকদের এই নোটিস পাঠিয়েছেন বলে জানা যায়।