চাকরি দেওয়ার নামে টাকা নেওয়ার অভিযোগ আনলেন এক তৃণমূল নেতা আরেক তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে

8
চাকরি দেওয়ার নামে টাকা নেওয়ার অভিযোগ আনলেন এক তৃণমূল নেতা আরেক তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে

তৃণমূল নেতাকে 14 লক্ষ টাকা দিয়েও মেলেনি চাকরি! সম্প্রতি এমনই দুর্দশা সম্মুখীন হতে হয়েছে আরো এক তৃণমূল নেতাকে। শাসকদলের অভ্যন্তরের এই দুর্নীতি আরো একবার এসএসসি নিয়োগ দুর্নীতির মামলায় নতুন মোড় নিয়ে এলো। এবার দলীয় এক তৃণমূল নেতা আরেক তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নামে টাকা নেওয়ার অভিযোগ আনলেন।

মালদার হরিশ্চন্দ্রপুর থানার সাদলিচক গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘটনা। অভিযোগ তৃণমূল নেতা মহিদুর রহমান ওরফে বাদল নাকি ওই পঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্য আরজাউল হকের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। ২০১৯ সালে উচ্চ প্রাথমিকের শিক্ষাকতায় চাকরি করিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা নিয়েছিলেন ওই ব্যক্তি।

অভিযোগকারীর অভিযোগ প্রায় সাড়ে ১৪ লক্ষ টাকা দেওয়ার পরেও এখনো পর্যন্ত চাকরি পাননি তিনি। কিছুদিন আগে টাকা ফেরত চাইলে ওই ব্যক্তি নাকি তাকে পাল্টা হুমকি দেয়। উল্লেখ্য শাসকদলের অন্দরেই এমন অভিযোগ পেয়ে কার্যত শাসকদলের বিরুদ্ধে সমালোচনায় সরব হয়েছে বিজেপি।

বিজেপি তরফ থেকে কটাক্ষ করে বলা হচ্ছে বর্তমানে তৃণমূলের প্রধান সংস্কৃতি হয়ে দাঁড়িয়েছে দুর্নীতি। এই দুর্নীতির থেকে কার্যত তৃণমূলের অন্দরের সদস্যরা নিস্তার পাচ্ছেন না। অন্যদিকে তৃণমূলের তরফ থেকে দাবি করা হচ্ছে দুর্নীতিতে যুক্ত থাকলে দল তাকে ছেড়ে দেবে না।