মাঝে মাঝেই গলা ব্যাথা হয়? জেনে নিন এই ব্যাথা সারানোর কিছু ঘরোয়া উপায়

8
মাঝে মাঝেই গলা ব্যাথা হয়? জেনে নিন এই ব্যাথা সারানোর কিছু ঘরোয়া উপায়

আমাদের সকলেরই প্রায় ঠান্ডাগরম আবহাওয়া ফলে ঠান্ডা লেগে থাকে, সেখান থেকেই টনসিল ফুলে যায় এবং ব্যথা শুরু হয়ে যায়। ঠান্ডা লাগার ফলে ইনফেকশনের জন্য টনসিল ফুলে যায়। এরফলে কোন কিছু খেতে খুবই অসুবিধা হয় এবং জল খাওয়াও দুষ্কর হয়ে ওঠে। মাএ পাঁচটি উপায় আপনি টনসিলের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন, জেনে নেওয়া যাক ওই পাঁচটি উপায় গুলি কি কি-

আমরা সবাই জানি উষ্ণ গরম জলে নুন দিয়ে গার্গেল করলে টনসিলের ব্যথা থেকে অনেকটাই মুক্তি পাওয়া যায়।কারণ নুন মিশিয়ে উষ্ণ গরম জলে গারগেল করলে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ অনেকটা কমে যায় এরফলে ব্যথা অনেকটাই কমে যায়। টনসিলের সমস্যায় ভুগলে চায়ের সঙ্গে অল্প আদা কুচি মিশিয়ে আদা চা খেলে টনসিলের ব্যথা থেকে অনেকটাই মুক্তি পাওয়া যেতে পারে। আদাতে থাকে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল যার ফলে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ অনেকটাই কম হয় ধীরে ধীরে টনসিলের ব্যথা থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়।

অন্যদিকে এক কাপ চায়ে এক-চামচ লেবুর রস কিছু আদা কুচি এবং একচামচ মধু দিয়ে দিনে দু তিনবার খেলে টনসিলের ব্যথা কমে যাবে। কিন্তু যতদিন না গলাব্যথা কমছে ততদিন এই চা খেয়ে যেতে হবে তাহলেই এর ফল পাওয়া যাবে। এছাড়াও তিন কাপ জল নিয়ে একচামচ গ্রিন টি এবং এক চামচ মধু মিশিয়ে 10 মিনিট ফুটিয়ে এই চা দিনে দু তিনবার খাওয়া হলে, টনসিল সহ নানা ধরনের রোগ থেকে দূরে থাকা যাবে। কারণ গ্রিন টিতে এনটিডিঅক্সাইড থাকে, যা বিভিন্ন ধরনের জীবাণু থেকে আমাদের শরীরকে রক্ষা করতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সক্ষম।

সর্বশেষ কার্যকরী উপায়টি হলো এক কাপ গরম দুধে হলুদ মিশিয়ে খেলে টনসিল এর হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে। তবে দুধটি ছাগলের দুধ হলে সবথেকে ভালো হয়। কারণ ছাগলের দুধে আ্যন্টিবায়োটিক উপাদান আছে যা জীবাণু মারতে সক্ষম। তবে ছাগলের দুধ না পাওয়া গেলে গরুর দুধে হলুদ মিশিয়ে খেলেও ফল পাওয়া যাবে।