কোন বড় মহামারী অথবা সংকট সময়ে চাণক্যের এই কথাগুলি মেনে চললে পাবেন সমস্যা থেকে মুক্তি

15
কোন বড় মহামারী অথবা সংকট সময়ে চাণক্যের এই কথাগুলি মেনে চললে পাবেন সমস্যা থেকে মুক্তি

ভারতের অন্যতম সেরা পন্ডিত এর মধ্যে ছিলেন চাণক্য অন্যতম। অর্থনীতির পাশাপাশি রাজনৈতিক বিজ্ঞান, কূটনৈতিক সম্পর্ক নিয়ে তিনি জ্ঞান অর্জন করেছিলেন। বিশ্ব বিখ্যাত তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ছিলেন তিনি। তার অভিজ্ঞতা এবং জ্ঞান আজও মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য। আজও লোকেরা তার নীতি অধ্যায়ন করে এবং জীবনে এগিয়ে চলার শক্তি অর্জন করার চেষ্টা করে।

চাণক্যের মতে, মানুষের জীবনে কোন বড় মহামারী অথবা সংকট এলে একজন ব্যক্তির নিজের প্রতি খুবই যত্নবান হওয়া উচিত। বর্তমান সমাজে করণাকে মহামারী হিসেবে বিবেচনা করা হয়। চাণক্যের মতে এই সময় একজন ব্যক্তির ঘাবড়ে যাওয়া একেবারেই উচিত নয়। সংকটের সময়ে ইতিবাচক দৃষ্টিকোণ দিয়ে চিন্তাভাবনা করা উচিত।

দুশ্চিন্তা অথবা ভয় পেলে সেই সমস্যাকে শনাক্ত করা যায় না। সুতরাং এই জিনিসগুলো মাথায় রাখতে হবে আপনাকে। দুর্যোগে কখনো সাহস হারিয়ে ফেলবেন না। চাণক্যের মতে, সাহস হারিয়ে গেলে কোন যুদ্ধে জয় লাভ করা যায় না। নানা সংকটের সময় একজন ব্যক্তির উচিত, সমস্যাটিকে সনাক্তকরণ করে প্রতিরোধের ব্যবস্থা করা। তার শক্তি কে সঠিকভাবে চালনা করা।

এই জন্য তিনি বলেছেন যে কোনরকম সংকট যদি দেখা যায় তাহলে ইতিবাচক চিন্তা ভাবনা করুন। অন্যকে অনুপ্রাণিত করুন। চাণক্যের নীতি অনুযায়ী, যখন কোন বড় সংকট আসে তখনই একজন ব্যক্তির প্রতিভা চিহ্নিত করা যায়। ইতিবাচক চিন্তাভাবনা একজন ব্যক্তিকে সমস্ত সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। তবেই খারাপ পরিস্থিতি মোকাবিলা করা সম্ভব।