এবার পুজোয় গ্লাস স্কিন পদ্ধতিতে নিজেকে করে তুলুন আকর্ষণীয়, দেখে নিন সেই পদ্ধতি

9
এবার পুজোয় গ্লাস স্কিন পদ্ধতিতে নিজেকে করে তুলুন আকর্ষণীয়, দেখে নিন সেই পদ্ধতি

প্রত্যেক মহিলা চান, একটি সুন্দর মুখের অধিকারী হতে। সৌন্দর্যের জন্য মহিলারা বহু দামি দামি কসমেটিক ব্যবহার করতে পিছপা হন না। বয়স কে নিয়ন্ত্রণে রাখতে, নিজেকে সকলের কাছেই সুন্দরী প্রমাণ করার জন্য দিনরাত এক করে দেন মহিলারা।কিন্তু দামি কসমেটিক ছাড়াও আরো একটি পদ্ধতি রয়েছে যার দ্বারা আপনি অনায়াসে সুন্দরী হয়ে যেতে পারেন। নিশ্চয় জানতে ইচ্ছা করছে কি সেই পদ্ধতি? সেই পদ্ধতি হল গ্লাস স্কিন পদ্ধতি।

এবার জেনে নেওয়া যাক, এই গ্লাস স্কিন আসলে কি? এই ধারণা আমরা পেয়েছি কোরিয়া থেকে। এই কথার অর্থ হল, কাঁচের মত স্বচ্ছ একটি ত্বক। এইতো এক একেবারে নিখুঁত হয়, ঠিক যেমন আমরা সব সময় চাই। ক্রিস্টালের মতো স্বচ্ছ, দাগহীন ত্বক হলো কোরিয়ান গ্লাস ক্লিনের আসল কথা। এবার নিশ্চয়ই জানতে ইচ্ছা করছে, কিভাবে আপনি পেতে পারেন এই সুন্দর এবং স্বচ্ছ ত্বক।আপনি যদি নিয়মিত নয়টি স্টেপ ফলো করতে পারেন, তাহলে দাড়িহীন স্বচ্ছ স্কিন একেবারে আপনার হাতের মুঠোয় চলে আসবে।

১) ক্লিনজারঃ রোজকার ত্বকের যত্নে ক্লিনজারের ভূমিকা সবথেকে বেশি। ভালো পিকচার আপনার ত্বকের উপরের স্তর থেকে সমস্ত ময়লা দূর করে দেয়। আপনার ত্বকের লেয়ার যদি পরিষ্কার না হয়, তাহলে কোন ক্রিম অথবা প্রোডাক্ট আপনার ত্বকের ভেতরে যেতে পারবেনা। তাই এদের মৃদু এবং কার্যকারী ক্লিনজার দিয়ে মুখ ভালো করে ধুয়ে নিন। এর পর একটি তোয়ালে দিয়ে ভালো করে মুখটা মুছে নিন। কখনো যদি মেকআপ করে সেটি তোলেন, তখন দুবার ক্লিনজার ব্যবহার করতে হবে। এর ফলে আপনি ভাল ফল পাবেন।

২) স্ক্রাবার: ক্লিনজিং এরপর আপনার মুখে আরও বেশি পরিষ্কার করে তুলতে স্ক্রাবার ব্যবহার করতে হবে। উপযুক্ত স্ক্রাবার ব্যবহার করলে আপনার ত্বকের ওপরে জমে থাকা মরা চামড়া দূর হয়ে গিয়ে ভিতরের উজ্জলতা বৃদ্ধি পায়। তবে অবশ্যই আপনি খেয়াল করবেন, যে স্ক্রাবার আপনার ত্বকের জন্য উপকারী সেটি শুধুমাত্র ব্যবহার করুন।

৩) শিট মাক্স: গ্লাস স্কিন পেতে গেলে কিন্তু আপনাকে অবশ্যই ব্যবহার করতে হবে শিট মাক্স। এই ফেস মাক্স অত্যন্ত দরকারি। এটি আপনার ত্বকের গভীরে গিয়ে কাজ করে, আপনার ত্বকের আর্দ্রতা এবং জেল্লা দুই বজায় রাখে।

৪) হাইড্রেটিং টোনার: হাইড্রেটিং টোনার এমন ব্যবহার করা উচিত, যাতে কোন অ্যালকোহল থাকে না। টোনার আপনার ত্বকের ময়েশ্চারাইজার ধরে রাখে। আপনার ত্বককে করে তোলে নরম এবং তুলতুলে। এটি কটন বলের ওপর কয়েক ফোঁটা টোনার নিয়ে থুপে থূপে মুখে লাগিয়ে নিন। টোনার এমনিতেই শুকিয়ে যায় তাই এটিকে আলাদা করে ধুয়ে ফেলার প্রয়োজন হয় না।

৫) সিরাম: গ্লাস স্কিন কেয়ার এর ক্ষেত্রে হাইড্রেটিং সিরাম একটি বড় জায়গা নিতে পারে। স্কিন ভেতর থেকে আদ্র না হলে উজ্জলতা আসেনা। আপনি যদি নিয়মিত সিরাম ব্যবহার না করে থাকেন, তাহলে এখনি ব্যবহার করা শুরু করে দিন। এটি তাড়াতাড়ি স্কিনের সঙ্গে মিশে যায়, এবং হাইড্রেশন এর ক্ষেত্রে খুব ভালো কাজ দেয়।

৬) লাইটওয়েট মশ্চারাইজার: টোনার ব্যবহার করার পর অবশ্যই মশ্চারাইজার লাগাতে হবে। এতে আপনার স্কিন আরো সুন্দর হয়ে উঠবে। ভাল মশ্চারাইজার স্কিন এর পিএইচ ব্যালেন্স ধরে রাখে।

৭) ফাউন্ডেশন: গ্লাস স্কিন পেতে হলে মিডিয়াম কভারেজ ফাউন্ডেশন ব্যবহার করুন। এতেই আপনি আপনার কাঙ্খিত রেডিয়েন্ট লুক পেয়ে যাবেন। ছড়া ফাউন্ডেশন কিন্তু গ্লাস ক্লিনের ক্ষেত্রে খুব একটা ভালো নয়।

৮) স্কিন হাইলাইট: ক্লিনজিং, টোনিং, মশ্চারাইজার এর পর এবার ব্যবহার করুন স্কিন হাইলাইটিং লোশন। এই লোশন ব্যবহারের সব থেকে ভাল পদ্ধতি হলো, আঙ্গুলের ডগায় কয়েক ফোঁটা লোশন নিন। নাক ও থুতনির কাছে বেশি গুরুত্ব দিন।

৯) লাস্ট টাচ আপ: আপনার দরকার সেই প্রতীক্ষীত নিখুঁত গ্লো, যার জন্য আপনাকে গ্লো বুষ্টিং হাইলাইটার ব্যবহার করতে হবে আরো একবার।

এবার জেনে নিন, কিভাবে সম্পূর্ণতা পাবে আপনার গ্লাস স্কিন কেয়ার। আরেকটা ছড়া মেকআপ কত রকম মেকাপ আপনার গ্লাস স্কিনের উজ্জ্বলতা কমিয়ে দিতে পারে। তাই ভারসাম্য বজায় রাখাটা খুব দরকার।

১) খানিকটা রং থুতনিতে: গ্লাস স্কিন লুক তখনই পূর্ণতা পায় যখন তিনি খানিকটা উজ্জ্বল রঙের হয়। মেকআপ ব্রাশের সাহায্যে গালে থুতনিতে হাইলাইট ব্যবহার করা উচিত।

২) চোখের মেকআপ: আপনি যে সুন্দর উজ্জ্বল ত্বক পেলেন, তা বজায় রাখার জন্য চোখের মেকআপ করা উচিত খুবই সাদামাটা। উপরের লেভেলে আইলাইনারের পাতলা লেয়ার হলেই চলবে। আই শ্যাডোর ক্ষেত্রে হালকা কালার বেছে নিন। সবশেষে মাশকারা ব্যবহার করতে ভুলবেন না।

৩) আইব্রও এর বিশেষ যত্ন: চোখের মেকআপ ততক্ষণ শেষ হয় না যতক্ষণ আইব্রও সুন্দর করে না সাজাতে পারেন। ওয়াটারপ্রুফ ব্রো জেল ব্যবহার করতে পারেন। তবে খুব ডিপ করে লাগাবেন না।

৪) উজ্জাল ঠোঁট: সুন্দর স্কিনের মেকআপ জমে যাবে যদি আপনার ঠোঁট হয় উজ্জ্বল। উজ্জল হাসি সর্বত্র জয়লাভ করে। লিপস্টিকের ওপর আপনি ব্যবহার করতে পারেন শাইনি লিপজেল। তবে দেখবেন সেটা যেন স্টিকি না হয়ে যায়।

ব্যাস, এবার নিশ্চয়ই জেনে নিলেন কিভাবে ঘরে বসে খুব সহজে পেয়ে যাবেন কোরিয়ান গ্লাস স্কিন কেয়ার এর পদ্ধতি। নিয়ম করে এই স্টেপ গুলি মেনে চললে আপনি রীতিমত গর্ব করবেন আপনার ত্বক সম্পর্কে।