এবার রেস্তোরাঁর স্বাদের ‘ডাব চিংড়ি’ খান বাড়িতেই! দেখে নিন বানানোর পদ্ধতি

29
এবার রেস্তোরাঁর স্বাদের 'ডাব চিংড়ি' খান বাড়িতেই! দেখে নিন বানানোর পদ্ধতি

চিংড়ি খেতে অনেকেই ভালোবাসেন। কি ঠিক বললাম তো! তার উপর দুপুরের লাঞ্চই হোক কিংবা রাতের ডিনার- যদি পাতে থাকে ডাব চিংড়ি তাহলে খাওয়াটা পুরো জমে যায় একেবারে। চিংড়ি-প্রেমীদের অত্যন্ত পছন্দের ডিশ এই ডাব চিংড়ি। তবে অনেকেই এই ডিশ বাড়িতে বানাতে বেশ চিন্তিত হয়ে পড়েন। কেউ কেউ আবার ভয়ও পান এই ভেবে যে, রেস্তোরাঁর মতো স্বাদ বুঝি আনতে পারবেন না! কিন্তু সেটা এক্কেবারেই আপনার ভুল ধারণা। বরং সঠিকভাবে বানাতে পারলে আপনার বানানো ডাব চিংড়ির কাছে মাথা নত করতে বাধ্য হবে বড় বড় রেস্তোরাঁও। দেখে নেওয়া যাক রেসিপিটা

১) উপকরণ: বড় আকারের চিংড়ি মাছ (৫-৭টি), কচি ডাবের শাঁস বের করে ডাবের জল দিয়ে বেটে নিন (১টি), সরষের তেল (২ টেবিল চামচ), পেঁয়াজ বাটা (১/২ কাপ), আদা-রসুনবাটা (১ টেবিলচামচ), নারকেলের দুধ (১/২ কাপ), উষ্ণ জল (১/২ কাপ), গরমমশলার গুঁড়ো (১ চা চামচ), চিনি (1 চা চামচ), নুন (স্বাদ অনুযায়ী), ভালো ঘি (২ টেবিল চামচ)

২) পদ্ধতি: যেহেতু এই রান্নায় ডাবের একটি মুখ্য ভূমিকা আছে তাই ডাবটিকে সঠিকভাবে কেটে নেওয়া খুব জরুরি। প্রথমে মাথার দিকটা কেটে নিন। এবার একটা বড় গোল গর্ত করে শাস ও জল বের করে নিন। নীচ দিকটা কেটে নিলে গোটা ডাবের ভিতর বসিয়েই চিংড়ি পরিবেশন করতে পারবেন।

এবার গ্যাসে কড়া চাপান। গরম হয়ে এলে তেল দিন ও তেল গরম হলে তাতে পেঁয়াজ বাটা দিয়ে দিন। মিনিট দু’য়েক পেঁয়াজটা ভালো করে ভেজে নিন যাতে কাঁচা গন্ধটা চলে যায়। এবার কড়াইতে চিংড়ি মাছ ছাড়ুন। মশলার সঙ্গে ভালো করে কষান। মাছের গায়ে গোলাপি রং ধরলে আদা-রসুন বাটা দিন। সঙ্গে গরমমশলা, সমপরিমাণ নুন-চিনি দিয়ে পুনরায় কষাতে থাকুন। সমস্ত মশলা কষা হয়ে গেলে নারকেলের দুধ আর গরম জলটা ঢেলে দিন। তারপর ভালো করে ফুটতে দিন।

পাত্রটি ঢাকা দিয়ে রেখে দিন আরও ৫-৭ মিনিট। জল টেনে এলে বেটে রাখা নারকেলের শাস দিন। একটু ফুটে উঠলে সবশেষে ঘি ও গরম মশলা ছড়িয়ে নামিয়ে নিন। সাবধানে নারকেলের খোলের মধ্যে প্রথমে কিছুটা মশলা ঢালুন। তারপর ওপরে চিংড়ি মাছ দিয়ে আবার কিছুটা মশলা দিন। ইচ্ছে মতো সাজিয়ে গরম গরম ভাত অথবা পোলাও- এর সাথে পরিবেশন করুন। আর বাড়ির সকলকে তাক লাগিয়ে দিন।