পুরুষের অভাবে হচ্ছে না বিয়ে! তাই বিবাহের জন্য পাত্রদের আহ্বান জানাচ্ছেন এই গ্রামের নারীরা

34
পুরুষের অভাবে হচ্ছে না বিয়ে! তাই বিবাহের জন্য পাত্রদের আহ্বান জানাচ্ছেন এই গ্রামের নারীরা

আজ আমাদের আলোচনার বিষয় হল ব্রাজিলের অনোইভা ডো করডেরিয়ো নামে একটি গ্রামকে নিয়ে। এই গ্রামের বয়স প্রায় ১২৮ বছর। ওই গ্রামের সাথে বাহিরের কোনো গ্রামের স’ঙ্গে এই গ্রামের স’স্পর্ক নেই ।

এই গ্রামের অধিবাসীদের মধ্যে ৬০০ এরও বেশি নারী। নারীদের মধ্যে ১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সী নারীর সংখ্যাই বেশি। এখানকার অধিকাংশ মহিলা সুন্দরী। ওই গ্রামে পুরুষদের সংখ্যা কম তাই গ্রামের নারীদের বিয়ে হয় না।

ওই গ্রামের নারীরা কিছুদিন থেকে বিবাহের জন্য পাত্রদের আহ্বান জানাচ্ছেন। কিন্তু যে বাচ্চারা তাদের বিবাহ করতে রাজি হবে তাদের অবশ্যই ওই গ্রামে বসবাস করতে হবে। কারণ ওই নারীরা ওই গ্রাম ছেড়ে কখনোই অন্য গ্রামে যাবেনা। কুড়িগ্রামের অধিবাসীদের মধ্যে বিবাহিত যে নারীরা আছেন তারা কখনোই ওই গ্রাম ছাড়েননি তাদের স্বামীরা ওই গ্রামে থাকবে এই শর্তেই তাদেরকে বিবাহ করেছে। সপ্তাহে দুদিন ওই পুরুষরা তাদের স্ত্রীদের কাছে এসে থাকে। ওই গ্রামের নারীরা বিবাহের জন্য ইচ্ছুক হলেও মেলেনা পাত্রের সন্ধান। তাই গ্রামের নারীরা বিবাহের জন্য পাত্রদের আহ্বান জানাচ্ছেন।

ওই গ্রামের সাথে বাহিরের কোন গ্রামের যোগাযোগ না থাকায় ওই গ্রামের নারীরা বেশিরভাগ কুমারী থাকে। আর ওই নারীরা যদি বিয়ে করতে চায় তাহলে বিবাহিত পুরুষকে তাদের বিবাহ করতে হয়।

চালাও ওই নারীরা পুরুষদের উপর নির্ভরশীল নয়। ওই গ্রামের নারীদের স্বনির্ভর করে তুলেছিলেন মরিয়া সেলেমা ডেলিমা। ১৮৯০ সালে
মরিয়া সেলেমা ডেলিমাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিয়ে দিয়ে দেওয়া হয়। তারপর ডেলিমা শ্বশুর বাড়ি ছেড়ে চলে এসে ১৮৯১ সালে এই গ্ৰামটির প্রতিষ্ঠা করেন।