ডেলিভারি গার্লের কাজ কে কুর্নিশ জানাচ্ছে নেট নাগরিকরা

7
ডেলিভারি গার্লের কাজ কে কুর্নিশ জানাচ্ছে নেট নাগরিকরা

জীবন সংগ্রাম বলে যে একটা কথা রয়েছে সেটা সত্যি সবাই মেনে নিতে পারে না। কিংবা সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে পারে না। কিন্তু কিছু কিছু খবর সামনে সামনে আসে যা দেখে বলতেই হয়। না এদের সাহস আছে। যদি কখনও জীবনের চলার পথ কঠিন বলে মনে হয় তাহলে এই সমস্ত মানুষের কথা শুনলে কাজ করার শক্তি আসে মনে।

সম্প্রতি একজন মহিলা ডেলিভারি গার্লের ছবি সামনে এসেছে যে দৈনিক ৫০ কেজির ব্যাগ নিয়ে বাইক চালিয়ে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ব্যান্ডেল, রাজারহাট, সুগন্ধার বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে ডেলিভারি করে থাকে। বাড়িতে তার রয়েছে মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী মেয়ে ও তৃতীয় শ্রেণীর এক ছেলে। সংসার চালাতে স্বামীর পাশাপাশি সুপ্রীতি নিজেও বাইক চালিয়ে একটি নামী সংস্থার ডেলিভারি গার্ল হিসেবে কাজ করে। তার এই জেদ, মনের জোড়কে সবাই কুর্নিশ জানিয়েছে। সকাল ৮ টার সময় অফিসে গিলে মাল্পত্র বুঝে নেয়। তারপরে সেগুলো ডেলিভারি করতে বের হয়, যে কাজে সাধারণত পুরুষদের দেখা যায় সেই কাজেই সে একজন মহিলা হয়ে কাজ করে।

তার পরিশ্রম আজ থেকে নয় দিল্লি রোডের কাছে নাকি একটা সময় ভাতের হোটেল ছিল তার। কিন্তু করোনা সবটাই শেষ করে দিয়েছে। এরপর বাচার লড়াই শুরু হয় তা। প্রথমে বাড়িতে মুদির দোকান দেয় সে কিন্তু সেভাবে চলে না সেই দোকান। এরপরে স্বামীর পাশাপাশি সংসার চালানোর জন্য সেও ডেলিভারী গার্লের কাজ বেছে নেয়। এখন তার দৈনিকের সঙ্গী ৫০ কেজি ওজনের ঢাউস ব্যাগ, যা নিয়েই সে লড়াই করে চলেছে দিনের পর দিন। তার এই কর্মকান্ড দেখে অবাক হতেই হয়।