এয়ারপোর্টে চাকরি দেওয়ার নামে লক্ষ লক্ষ টাকা আদায়! কলকাতায় গ্রেপ্তার প্রতারক

9
এয়ারপোর্টে চাকরি দেওয়ার নামে লক্ষ লক্ষ টাকা আদায়! কলকাতায় গ্রেপ্তার প্রতারক

এখনকার এই করোনা পরিস্থিতিতে একটি চাকরি জোগাড় করতে কত মানুষেরই মাথার ঘাম পায়ে ঝড়ে। কত মানুষেরই জুতোর সোল খুলে যায়, তবুও একটি চাকরি পাওয়া যায় না। তাই এই পরিস্থিতিতে একদিকে যেমন চাকরির আকাল, অন্যদিকে আবার এই চাকরিকে কেন্দ্র করেই চলছে নানারকম প্রতারণামূলক ব্যবসা। এরকমই এক প্রতারণার ঘটনা ঘটেছে নিউটাউনে। অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে।

আজকাল সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রায়শই চাকরির বিজ্ঞাপন চোখে পড়ে। নিজেকে এয়ারপোর্ট অথরিটির স্টাফ বলে পরিচয় দিতেন ওই যুবক। এই সূত্র ধরেই এয়ারপোর্টে চাকরি দেওয়ার নাম করে লক্ষাধিক টাকা আদায় করতেন লোকজনের কাছ থেকে। যুবকের নাম কুণাল সাহা। এরূপ খবর হাতে আসতেই নিউটাউনের আকাঙ্খা মোড়ের কাছ থেকে তাকে গ্রেফতার করল ইকোপার্ক থানার পুলিশ। সোমবার ধৃতকে বারাসত আদালতে তোলার কথা। তাঁকে নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানাবে পুলিশ।

পুলিশের মাধ্যমে জানা গেছে যে, পূর্ব বর্ধমানের এক যুবক ইকোপার্ক থানাতে অভিযোগ করেন যে, সোশ্যাল মিডিয়ায় চাকরির একটি বিজ্ঞাপন দেখে সেখানে দেওয়া ফোন নম্বরে যোগাযোগ করেন তিনি। ফোনে কুণাল সাহা নামের ওই ব্যক্তি নিজেকে এয়ারপোর্ট অথরিটির স্টাফ বলে পরিচয় দেন এবং সেইসাথে বিমানবন্দরে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন। কিন্তু তার বিনিময়ে পূর্ব বর্ধমানের ওই যুবকের থেকে টাকা দাবি করেছিলেন তিনি।

তবে শুধুমাত্র বর্ধমানের ওই যুবক একা নন, কুণালের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন আরও বেশ কয়েকজন যুবক। তাঁরাও টাকা ও বেশ কিছু ডকুমেন্টস কুণালের হাতে তুলে দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ করেছেন। চাকরি পাওয়ার আশায় মানুষ কি না করতে পারে হয়তো সে বিষয়ে অনেকেরই ধারণা নেই। তাই এরাও সব মিলিয়ে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা অভিযুক্তের হাতে তুলে দেন। কিন্তু, বেশ কিছুদিন কেটে যাওয়ার পরও যখন তাঁরা চাকরির কোনও খবর পাচ্ছিলেন না, তখনই তাঁরা বুঝতে পারেন যে তাঁরা প্রতারণার শিকার হয়েছেন।

প্রতারিত সেই সব যুবক একসঙ্গে গতকাল ইকোপার্ক থানায় অভিযোগ দায়ের করেন কুণালের বিরুদ্ধে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে ইকোপার্ক থানার পুলিশ গতকাল রাতে নিউটাউনের আকাঙ্খা মোড় থেকে কুণাল সাহাকে গ্রেফতার করে। ধৃতকে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ এবং এই প্রতারণা চক্রের সঙ্গে আর কারা যুক্ত রয়েছে তা জানার চেষ্টা চালানো হচ্ছে পুলিশের তরফ থেকে।

জানি এইসব ঘটনা নতুন নয়। এর আগেও সাইবার প্রতারণার ঘটনা ঘটেছিল কলকাতায়। সাইবার প্রতারণার ঘটনা ক্রমশ বাড়ছে। প্রতিদিনই কোনো না কোনো নতুন ফাঁদে জড়াচ্ছে সাধারণ মানুষকে। গত মাসের শেষের দিকে সাইবার প্রতারণার শিকার হয়েছিলেন প্রাক্তন এক আইএএস অফিসার। অনলাইন শপিং সংস্থার কর্মীর পরিচয় দিয়ে ওই অফিসারকে প্রতারণা করা হয়। এই ঘটনায় ভিন রাজ্যের ৫ জনকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ।