অস্বাভাবিক মনের জোড়ে এবং অক্লান্ত পরিশ্রম করে ট্যাক্স অফিসার হয়ে বাড়ি ফিরলেন মিরাটের সজ্ঞু রানী বর্মা

5
অস্বাভাবিক মনের জোড়ে এবং অক্লান্ত পরিশ্রম করে ট্যাক্স অফিসার হয়ে বাড়ি ফিরলেন মিরাটের সজ্ঞু রানী বর্মা

মিরাটের বাসিন্দা সজ্ঞু রানী বর্মা অস্বাভাবিক মনের জোড়ে এবং অক্লান্ত পরিশ্রম করে, তিনি ট্যাক্স অফিসার হওয়ার স্বপ্ন পূরণ করলেন। সজ্ঞু 7 বছর পর বাড়ি ফিরে আসলেন তার পরিবারের কাছে। 2013 সালে তিনি বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েছিলেন। কারণ তার পরিবার চেয়েছিলেন তার বিয়ে দিয়ে দিতে। কিন্তু তিনি তাঁর পরিবারের এই সিদ্ধান্তকে মেনে নিতে পারেনি। এজন্য তিনি বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে যান।

সজ্ঞু রানি বর্মা যখন বাড়ি থেকে বেরিয়ে গিয়েছিলেন তখন তিনি বিশ্ববিদ্যালয় মাস্টার ডিগ্রী করছিলেন। বাড়ি থেকে বেরোনোর পর তিনি একটি ছোট জায়গায় বসবাস করতেন এবং কিছু ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াতেন, পড়াশোনার খরচ চালাবার জন্য । অনেক লড়াইয়ের পর সজ্ঞু মাস্টার ডিগ্রি সম্পূর্ন করে। তারপর সজ্ঞু একটি বেসরকারি স্কুলের শিক্ষিকার চাকরি করেছিলেন। তার সাথেই তিনি পড়াশোনা করছিলেন পাবলিক সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষার জন্য।

তার অদম্য মনের জোর ,পরিশ্রম, পড়াশোনার প্রতি সাধনা তাকে সাহায্য করেছিল পাবলিক সার্ভিস কমিশন পরীক্ষায় সফল হতে। এই পরীক্ষায় সফল হয়ে তিনি এখন ট্যাক্স অফিসার। তার পরিবার তাকে অনুপ্রেরণা দেওয়ার সত্বেও, সে ট্যাক্স অফিসার হয়ে পরিবারের কাছে ফিরে যান। পরিবারও তাকে অস্বীকার করতে পারেনা। তিনি বলেন আমার পরিবার আমার ইচ্ছা ও স্বপ্নকে গুরুত্ব না দিলেও। মেয়ে হিসেবে বাবা-মার প্রতি এবং পরিবারের প্রতি আমার একটা কর্তব্য রয়েছে। তাই আমি আবার আমার পরিবারের কাছে ফিরে এসেছি।

কিন্তু সঞ্জু ট্যাক্স অফিসার হয়ে থেমে থাকতে চায়না, ইউপিএসসি পরীক্ষা দিয়ে জেলাশাসক হতে চায়। এখন ইউপিএসসি পরীক্ষার জন্য আবার কঠোর পরিশ্রম ও সাধনার জন্য তৈরি হচ্ছে। তার এই জীবন কাহিনী থেকে বোঝা যায় মেয়েরা চাইলে সব কিছুই পারে। প্রত্যেক মেয়ের কাছে সঞ্জু রানী বর্মা একজন অনুপ্রেরণা।