আপনার সাধারণ সাইকেলকে বানিয়ে ফেলুন ইলেকট্রিক সাইকেল!

19
আপনার সাধারণ সাইকেলকে বানিয়ে ফেলুন ইলেকট্রিক সাইকেল!

রম রমিয়ে চলছে ই- সাইকেলের বিক্রি, যা কিনতে গেলে খরচ পড়ছে ৩০ হাজার টাকা। তবে আপনি চাইলেই আপনার সাধারণ সাইকেলটি হয়ে উঠতে পারে ইলেকট্রিক সাইকেল। আমাদের রোজকার জীবনের রাস্তাঘাটে এখন প্রায়শই ই-সাইকেলের দেখা পাওয়া যাচ্ছে, যেখানে মানুষকে শারীরিক কসরত না করেই মোটরের সাহায্যে সোঁ সোঁ আওয়াজ এ চলতে দেখা যাচ্ছে। স্বাভাবিক ভাবেই তা দেখে মানুষের মনে আগ্রহ বাড়ছে। তবে বাজারে বিক্রি এই সাইকেল গুলি ৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত রেঞ্জ দেয়া হচ্ছে কিন্তু তা না কিনেও মাত্র ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা খরচ করলেই সাধারণ সাইকেলই হয়ে উঠতে পারে বৈদ্যুতিক সাইকেল। আসুন জানবো সে সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে।

পুরনো সাইকেলটিকে ই-সাইকেলে রুপান্তর করার জন্য লাগবে একটি লিথিয়াম ব্যাটারি, চার্জার ইনস্টলেশন কিট কন্ট্রোলার আর বি এল ডি সি মোটর। তবে ২৫০ডব্লু / ৩৬ভি -র মোটর হলেই চলবে। যাতে মোটরের গতি হবে ৩২৮ আরপিএম। যার দাম প্রায় ৬৫০০ টাকা।

চার্জার ও কন্ট্রোলার : এই ধরনের সাইকেলে প্রয়োজন ৪ এএমপি টুয়েলভের চার্জার। যাতে লিথিয়াম ব্যাটারি চার্জ করা যায় এবং একটি লিথিয়াম চার্জারও ইন্সটল করতে হবে। যা সাধারণ চার্জারের থেকে একটু আলাদা অবশ্য সোলার প্যানেল দিয়েও ব্যাটারি চার্জ করা যায়। তবে সোলার প্যানেল ভোল্টেজ হতে হবে ৩৬ভি। এছাড়াও লাগবে নাটবল্টু, সুইচ যা দিয়ে অফ অন করা যাবে। এক্সিলারেটার যেগুলি ই-কমার্স ওয়েবসাইটে খুব সহজেই পাওয়া যায়।

ব্যাটারি : এতে ব্যবহৃত লিথিয়াম ব্যাটারিগুলি কম ওজনের হয় যাতে দু-তিন ঘন্টার মধ্যেই ফুল চার্জ হয়ে যায়। তবে লিথিয়াম ব্যাটারি হতে হবে ৩৬ভি তবেই ৩৬ বি মোটরের সাথে সঠিক হবে।

যদি কোন রকম কোন অসুবিধা হয় তার জন্য থাকছে একটি গাইড বুক। সবশেষে তাতেও যদি কোন সমস্যা হয় সমস্ত যন্ত্রপাতি নিয়ে কোন মোটর মেকানিকের কাছে গেলেই কেল্লাফতে। তাতে খরচ পড়বে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা। এই ই-সাইকেল একবার চার্জে ২০ কিলোমিটার পর্যন্ত চলতে সক্ষম। সর্বোচ্চ যেতে পারে ২৫ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা গতিতে। তবে তা সাইকেল আরোহীর ওজনের ওপর সাইকেলের যত্ন এবং রাস্তার অবস্থার উপরও কিছুটা নির্ভরশীল। আগামী দিন এই ই-সাইকেলের চাহিদা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে চলেছে।