আগুন পেলেই সোনায় পরিনত হবে ম্যাজিক বালি, প্রতারকের কোথায় ভুলে ৫০ লক্ষ টাকা খোয়ালেন এক ব্যবসায়ী

7
আগুন পেলেই সোনায় পরিনত হবে ম্যাজিক বালি, প্রতারকের কোথায় ভুলে ৫০ লক্ষ টাকা খোয়ালেন এক ব্যবসায়ী

যতবার মানুষ লোভে পড়েছে, ততবার তাকে তার খেসারত দিতে হয়েছে। গল্পকথায় আমরা পড়েছি সোনার ডিমের কথা। তেমনি বাস্তব জীবনে আমরা শুনেছি চিটফান্ডের কথা। সবক্ষেত্রেই কিন্তু মানুষ লোভে বশবর্তী হয়ে প্রতারণার কবলে পড়েছে। এই একবিংশ শতাব্দিতেও এমন আরও একটি ঘটনা ঘটল পুনেতে।

একজন ব্যক্তির কাছে প্রতারক দাবি করেছিল যে, গরম তাপ পেলেই নাকি বাংলার ম্যাজিক বালি সোনায় পরিণত হবেই। তার এই কথাই ভুলে গিয়ে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার ম্যাজিক বালি কিনেছিলেন ওই ব্যবসায়ী। তার পরেই তাকে তার খেসারত গুনতে হল।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই গয়না ব্যবসায়ীর সাথে প্রতারকের আলাপ হয়েছিল এক বছর আগে। অভিযুক্ত একদিন তার দোকানে গিয়ে ছিলেন। কথায় কথায় তাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব তৈরি হয়। এরপর ওই লোকটি ব্যবসায়ীর বাড়িতে যাতায়াত করতে শুরু করে। পরিবারের সকলের সঙ্গে পরিচয় হয় তার।

একদিন অভিযুক্ত তাকে ব্যাগভর্তি ৪ কেজি বালি দেয়, তাকে গ্যারান্টি দিয়ে বলে যে, একবছর পরে যদি ওই বালিতে আগুন দেওয়া যায়, সঙ্গে সঙ্গে তা সোনা তে রূপান্তরিত হবে। এই কথাতে রীতিমতো রোমাঞ্চিত হয়ে পড়ে ওই ব্যবসায়ী। সঙ্গে সঙ্গে তাকে কুড়ি লক্ষ টাকা দিয়ে ওই বালি কিনে নেন তিনি।

কিন্তু এক বছর পর যখন বুঝতে পারেন যে, তিনি কতটা ভুল করেছেন, সঙ্গে সঙ্গে কেঁদে ফেলেন তিনি। তারপরই পুলিশের কাছে রিপোর্ট করতে যান তিনি। ঘটনাটি অবিশ্বাস্য হলেও কিন্তু আজকের দিনে সত্যি।

জ্যোতিষশাস্ত্র বিশ্বাস করেন এমন অনেক মানুষ পৃথিবীতে রয়েছেন। তাদের নরম মনের সুযোগ নিয়ে ঠকিয়ে দেবার মানুষ এই পৃথিবীতে কম নেই। যেহেতু পুনে শহরের ওই মানুষটি ছিলেন গয়না ব্যবসায়ী। তাই বিশেষ করে তিনি কিনেছিলেন ৪ কেজি ম্যাজিক বালি। বালি তো সোনাতে রূপান্তরিত হলনা, উল্টে ৫০ লক্ষ টাকা নিয়ে চম্পট দেয় প্রতারক।

তদন্ত শুরু হলেও প্রতারকের এখনো কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। অভিযুক্তকে ভারতীয় দণ্ডবিধির ধারা ৪২০, ৪০৬, ৩৪ এর আওতায় ফেলা হয়েছে।