জানুন এবছরের জন্মাষ্টমী তিথির দিনক্ষণ এবং ব্রত পালনের নিয়ম

35
জানুন এবছরের জন্মাষ্টমী তিথির দিনক্ষণ এবং ব্রত পালনের নিয়ম

প্রতিবছরের মতো এই বছরে পালিত হবে জন্মাষ্টমী। এই ঋণ জন্মগ্রহণ করেছিলেন ভগবান কৃষ্ণ। ভাদ্র মাসের কৃষ্ণপক্ষের অষ্টমী তিথিতে এবং রোহিণী নক্ষত্র অনুযায়ী কৃষ্ণের জন্ম হয়েছিল। এইদিন কৃষ্ণকে ননীগোপাল রূপে পূজা করা হয়। আগস্ট মাসের ৩০ তারিখ জন্মাষ্টমী পালন করা হবে এই বছর। সারাদেশে এই উৎসবের বিশেষ একটি গুরুত্ব রয়েছে।

ব্রত নিয়ম: ভাদ্র মাসের কৃষ্ণপক্ষের অষ্টমী তিথিকে জন্মাষ্টমী বলা হয়। নারী-পুরুষ উভয় এই ব্রত পালন করতে পারেন। ব্রথের দিন উপবাসী থেকে রাতে পুজো করে পরদিন ব্রাহ্মন ভোজন করার পর প্রসাদ গ্রহণ করতে হয়।

ব্রত পালন করার নিয়ম: জন্মাষ্টমীর আগের দিন নিরামিষ খাওয়ার পর সংযম পালন করতে হয়। ঘুমানোর আগে অবশ্যই মুখ ধুয়ে ঘুমাতে হয়। জন্মাষ্টমীর দিন সকাল থেকে মধ্যরাত্রি পর্যন্ত উপবাস এবং জাগরণ পালন করতে হয়। উপবাস থেকে হরিনাম জপ, ভগবত পাঠ এবং কৃষ্ণলীলা শ্রবণ করতে হয়। জন্মাষ্টমীর পরের দিন সকালে স্নান করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শ্রীকৃষ্ণের প্রসাদ দিয়ে ব্রত সমাপ্ত করতে হয়।

পারণ আরম্ভের মন্ত্র: “সর্বায় সর্বেশ্বরায় সর্বপতয়ে সর্বসম্ভবায় গোবিন্দায় নমো নমঃ।”

পারণান্তে মন্ত্র: “ভূতায় ভূতেশ্বরায় ভূতপতয়ে ভূতসম্ভবায় গোবিন্দায় নামো নামো”।

জন্মাষ্টমী পূজার বিধি: জন্মাষ্টমী ব্রত পালন করার জন্য ফুল, আতপ চাল, তুলসী পাতা, দূর্বা, ধুপ, প্রদীপ, পঞ্চগুড়ি, পঞ্চগব্য, বালি, পাট, পঞ্চ বর্ণের গুঁড়ো মধুপর্ক আসন অঙ্গুরী সহ পুজোর আয়োজন করতে হয়। এই দিনে উপবাস করে উপকরণ গুলি দিয়ে শ্রীকৃষ্ণের পূজা করতে হয়। ব্রত ভঙ্গের পর নিরামিষ আহার গ্রহণ করতে হয়। এই বিশেষ নিয়ম পালন করলে শ্রী কৃষ্ণের কৃপা বর্ষণ হবে আপনার ওপর। যাবতীয় সমস্যার সমাধান খুব সহজে করতে পারবেন আপনি।

পুজোর সময় এবং নির্ঘণ্ট:

অষ্টমী তিথি সমাপ্ত: ৩০ শে আগস্ট সোমবার রাত ১:৪৯ মিনিট।

জন্মাষ্টমী পূজোর শুভক্ষণ: রোহিণী নক্ষত্র

রোহিণী নক্ষত্র শুরু: ৩০ শে আগস্ট সকাল ৬ টা ৩৯ মিনিট।

রোহিণী নক্ষত্র শেষ: ৩১ আগস্ট মঙ্গলবার সকাল ৯ টা ৪৪ মিনিট।

পুজোর শুরু হবার শুভক্ষণ: ৩০ শে আগস্ট সকাল ১১:৫৯ মিনিট থেকে ১২:৪৪ পর্যন্ত।

এই সময় অনুযায়ী ৪৫ মিনিটের মধ্যে পূজা সম্পন্ন করতে হবে।

৩১ আগস্ট সকাল ৯:৪৪ মিনিট পর ভঙ্গ করা যাবে।