জানুন মাছের সাথে মাছের তেল খাওয়ার উপকারিতা

14
জানুন মাছের সাথে মাছের তেল খাওয়ার উপকারিতা

অনেকেই বড়ো মাছ অর্থাৎ বরফ দেওয়া মাছ খেতে পছন্দ করেন না। বড় মাছের তেলে শরীরে ক্ষতি হতে পারে, এমনটা মনে করেন অনেকেই। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মত অনুযায়ী, মাছের তেল কিন্তু মাছের মতই সমান পুষ্টিকর। আমরা হয়তো অনেকেই জানিনা, মাছের তেলে থাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, প্রোটিন, ওমেগা থ্রি, ফ্যাটি এসিড, আয়োডিন। এই সব ক’টি উপাদান আমাদের শরীরের পক্ষে অতিরিক্ত প্রয়োজনীয়। মাছের ৭০ শতাংশ জুড়ে থাকে অন্যান্য ফ্যাট, বাকি ৩০ শতাংশ থাকে মাছের তেলে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, যারা প্রত্যেকদিন মাছের তেল খান, অথবা যারা প্রতিদিন মাছ খান তাদের হার্টের সমস্যা খুব কম দেখা যায়। মাছ খেলে হার্টের রোগ থেকে অনেকটাই দূরে থাকা যায়। শরীরের জন্য অথবা হার্টের জন্য অত্যন্ত উপকারী মাছের তেল। মাছ খেলে কমে যেতে পারে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা। এছাড়া রক্তচাপের সমস্যা কমে যেতে পারে।

নিয়মিত মাছের তেল খেলে ধমনীতে জমে থাকা চর্বি সমস্যা কমতে থাকে। ধমনীতে যদি ক্রমশ চর্বি জমে তাহলে রক্তবাহী নালী অনমনীয় হতে পারে। রক্তের অনুচক্রিকা ভেঙে রক্ত জমাট বাঁধতে পারে এবং ফলে হতে পারে হার্ট অ্যাটাক। কিন্তু মাছ অথবা মাছের তেল এই রক্তকে জমাট বাঁধতে দেয় না। পাশাপাশি মস্তিষ্কের কাজ কর্ম সঠিকভাবে চালাতে সাহায্য করে এই মাছের তেল। মাছের তেল চোখের স্বাস্থ্য ভালো রাখে এবং দৃষ্টিশক্তি উন্নত করতে সাহায্য করে।

সাম্প্রতিক অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, শিশুদের বৃদ্ধি বিকাশ, স্মৃতিশক্তি এবং দৃষ্টিশক্তি বাড়ানোর জন্য আমাদের দরকার প্রত্যেকদিন মাছ খাওয়ানো। ছয় থেকে দশ বছর বয়সী শিশুরা যদি পর্যাপ্ত ওমেগা-থ্রি গ্রহণ করতে পারে তাহলে তাদের সার্বিক উন্নতি হতে পারে। মাছের তেলে রয়েছে এমন এক রাসায়নিক উপাদান যা ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে। ছোট কাঁটাযুক্ত মাছকে ক্যালসিয়ামের একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস হিসেবে ধরা হয়, ফলে আপনার দাঁতের স্বাস্থ্য ভালো থাকে। তাই আজ থেকে শুরু করে দিন মাছ খাওয়ার পাশাপাশি মাছের তেল খাওয়া।