জানুন যারা প্রেমে আঘাত পেতে পেতে বিয়ে করার ইচ্ছে হারিয়ে ফেলেছেন

9
জানুন যারা প্রেমে আঘাত পেতে পেতে বিয়ে করার ইচ্ছে হারিয়ে ফেলেছেন

বলিউড এর একটা গান আছে “হার কিসিকো সাচ্চা প্যায়ার নাহি মিলতা”। এই গান টা অনেকের ক্ষেত্রেই খুব প্রযোজ্য। একজীবনে সত্যিকারের ভালোবাসার সন্ধান পাওয়া কিন্তু মোটেই সহজ ব্যাপার নয়। এরকম সুখী মানুষ খুব কমই আছেন। আর আজকালকার দিনে ভালোবাসা মানে তো শুধুই শারীরিক চাহিদা মেটানো ছাড়া অন্য কিছু নয়। তবে সত্যিকারের ভালোবাসার গভীরতা মনে অনেকটাই ছাপ ফেলে যায় । বেশিরভাগ মানুষই ছলনাময় ভালোবাসার স্বীকার হয়ে থাকেন। অনেকের প্রেম কাহিনি পরিপূর্ণ হয়না। জীবনে পেয়ে থাকেন শুধুই প্রতারণা। প্রেমে আঘাত পেতে পেতে বিয়ে করার ইচ্ছে হারিয়ে ফেলেছেন অনেকেই। রয়ে গিয়েছেন single। আজকের প্রতিবেদনে আপনাদের এমনই কিছু নারীর কথা বলতে চলেছি।

সুরেয়া: ৮০-র দশকের অভিনেত্রী সুরাইয়া ভারতীয় চলচ্চিত্রের খুব জনপ্রিয় অভিনেত্রী ছিলেন। মনমুগ্ধ চালচলন এবং গভীর দৃষ্টিতে অনেক পুরুষের মন আকর্ষণ করেছিলেন। কিন্তু তিনি নিজে দেবানন্দ এর প্রেমে পড়েন। দেবানন্দও খুব ভালোবাসতেন তাঁকে। দুজনে দুজনকে বিয়েও করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু অবশেষে ধর্ম বাধা হয়ে দাঁড়ায়। ওনার দিদিমা অন্য ধর্মের ছেলের সাথে ওনার বিয়ে দিতে চান নি। দেবানন্দ খুবই ভেঙ্গে পড়েছিলেন। শেষে ১৯৫১ তে কল্পনা কার্তিক এর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন দেবানন্দ। আর সুরাইয়া কুমারী থেকে যান।

আমিশা প্যাটেল: ‘কাহনা প্যায়ার হায়’ সিনেমার হাত ধরেই Bollywood-এ এন্ট্রি নিয়েছিলেন আমিশা প্যাটেল। Bollywood-এ তাঁর অনেক হিট সিনেমা রয়েছে। আমিশার অনুরাগীর সংখ্যাও নেহাত কম নয়। তাঁর জনপ্রিয় ফিল্মগুলির মধ্যে অন্যতম ছিল ‘গদর’। ব্যক্তিগত জীবনে বিক্রম ভাটের সঙ্গে প্রেম সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন তিনি। ৫ বছর পর ২০০৭ এ দুজনের ব্রেক আপ হওয়ার পর ব্যাবসায়ী কানাব পুরির প্রেমে পড়েন। সেই সম্পর্কও বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। এখন একাই জীবন কাটাচ্ছেন।

তব্বু: Bollywood এর অন্যতম জনপ্রিয় নায়িকা হলেন তাব্বু। Bollywood এর পাশাপাশি তিনি অসংখ্য ভাষার ছায়াছবিতে কাজ করেছেন, এমনকি হলিউড ছায়াছবিতেও অভিনয় করেছেন। ছয়টি ফিল্মফেয়ার পুরস্কারজয়ী তব্বু শিল্পকলায় অসামান্য অবদানের জন্য ২০১১ সালে ভারত সরকার কর্তৃক পদ্মশ্রী সম্মাননায় ভূষিত হন। তবে তাঁর ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে তার অনুরাগীদের আগ্রহের শেষ নেই। সাউথ স্টার নাগার্জুন এর সাথে ১৫ বছর প্রেম সম্পর্কে আবদ্ধ ছিলেন। কিন্তু নাগার্জুন বিবাহিত হওয়ায় দুজনের মিলন ঘটেনি। তার মতে পরে ভাই সমীর আর অজয় দেবগন কোনো ছেলের সাথে তাঁর মেলামেশা পছন্দ করতেন না। সত্যিটা অবশ্য এখনও ধোঁয়াশা।

পারভিন ববি: সত্তরের দশকের বলিউডের সাড়া জাগানো অভিনেত্রীর মধ্যে অন্যতম একজন। বলিউড এর সব থেকে bold অভিনেত্রী। সুপারহিট অভিনেত্রী হিসেবে যতটা জনপ্রিয় ছিলেন ববি ততটাই আকর্ষণীয় ছিল তার ব্যক্তিগত জীবন। সে সময় bikini-তে অভিনেত্রীর সাবলীল ছবি আবালবৃদ্ধবনিতার মন কেড়ে নিয়েছিল। আড়ম্বরে পরিপূর্ণ তার জীবনে এমন কিছু ঘটনা রয়েছে যা অনেকেরই অজানা। একাধিক সম্পর্কেও নাম জড়িয়েছিল পারভিন ববির। সাহসী অভিনেত্রী হিসেবে বি-টাউনে তার খ্যাতি ছিল।ইন্ডাস্ট্রিতে আসার পর প্রথমে ড্যানির সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন তিনি। ড্যানির পর কবির বেদীর সাথে প্রেম হয় ,পরে বিক্রম ভাটের সাথে সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন। তবে কোনো সম্পর্কই খুব বেশিদিন স্থায়ী হয়নি।। তারপর অসুস্থ হওয়াতে ২০০৫ সালে ২০ জানুয়ারী মৃত্যু হয় এই অভিনেত্রীর।