ইউটিউবের একজন মহান শিক্ষক হলেন খান স্যার! জানুন তার সম্পর্কে

18
ইউটিউবের একজন মহান শিক্ষক হলেন খান স্যার! জানুন তার সম্পর্কে

একটি শিশুর আদর্শ মানুষ হয়ে ওঠার পেছনে তার বাবা মা এর পর শিক্ষকের ভূমিকা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ। শিক্ষক খানিকটা ‘দ্বিতীয় পিতা’র মতো। আর এরকম একজন মহান শিক্ষক হলেন খান স্যার। খান স্যার খুবই পরিচিত সকলের কাছে।

তবে তার আসল নাম নিয়ে যথেষ্ট বিতর্ক রয়েছে। কেউ কেউ বলেন তার নাম ফ্যায়সাল খান আবার কারও মতে, তার নাম অমিত সিং। উত্তরপ্রদেশের গোরখপুর জেলায় তার জন্ম। খান স্যারের দাদা ভারতীয় সেনাবাহিনীর একজন কামান্ডো। তিনিও তার দাদার মতো সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে চেয়েছিলেন। সেই কারণে ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যাকাডেমী পরীক্ষায় পাশ করলেও শারীরিক ত্রুটির কারণে তিনি বাদ পরেন।

তিনি একবার বিহারের পাটনায় যান। সেখানকার দরিদ্র পরিস্থিতির কথা চিন্তা করে তিনি সিদ্ধান্ত নেন যে কম পারিশ্রমিকে কোচিং খুলে গরীব দুঃস্থ শিশুদের পড়াবেন। যেমন ভাবা, তেমন কাজ। ধীরে ধীরে তার পড়ানোর টেকনিক সকলের ভালো লাগে এবং অনেক স্টুডেন্ট তার কোচিং সেন্টারে ভর্তি হয়। সেই জন্য কোচিং সেন্টারে জায়গার অভাব দেখা দিলে তিনি অনলাইনে টিচিং এর ব্যবস্থা করার কথা ভাবেন।

আর সেই উদ্দেশ্যে তিনি ইউটিউবে একটি চ্যানেল খোলেন। তার ইউটিউব চ্যানেলের নাম খান জি এস রিসার্চ সেন্টার, যা তিনি 2019 সালে চালু করেন। আজকের দিনে দাঁড়িয়ে তার এই চ্যানেলে 12.3 মিলিয়ন সাবস্ক্রাইবার রয়েছে। করোনাকালে যখন সমস্ত কোচিং সেন্টার বন্ধ তখন তিনি তাৎক্ষণিক ঘটনাগুলিকে ইউটিউবের মাধ্যমেই সকলের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন। বর্তমানে তার ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিওর ভিউ এক কোটি ছাড়িয়ে গিয়েছে। ইউটিউব থেকে বার্ষিক 50 লাখ থেকে 2 কোটি টাকা পর্যন্ত আয় করে থাকেন।

খান স্যারের পড়ানোর কৌশল দেখে অনেক বড় বড় ইনস্টিটিউশন থেকে মোটা টাকার প্যাকেজও এসেছিল তার কাছে। কিন্তু তিনি অবলীলাক্রমে সেই সব অফার বাতিল করে দেন। আর নিজে স্বাধীনভাবে তার পড়ানো চালাতে থাকেন। তিনি শিক্ষক হিসেবে এককথায় ভারতের গর্ব। খান স্যারের বোঝানোর ধরন সত্যিই অসাধারণ। জীবনে উন্নতি করতে হলে এই রকম মহান শিক্ষকের সত্যিই ভীষণ প্রয়োজন।