“আমি এতদিনে ‘অ্যাক্টর’ থেকে ‘ডক্টর’ হলাম” অভিনেত্রী জুন আন্টি

24
“আমি এতদিনে ‘অ্যাক্টর’ থেকে ‘ডক্টর’ হলাম

টলিপাড়ায় তথা সিরিয়ালের জগতে বেশ পরিচিত অভিনেত্রী জুন আন্টি (June Aunty) ওরফে ঊষসী চক্রবর্তী । যদিও জুন আন্টি নামটা তিনি পেয়েছেন স্টার জলসার জনপ্রিয় ধারাবাহিক শ্রীময়ী থেকে। শ্রীময়ীতে দুর্দান্ত অভিনয়ের সুবাদে আজ নিজের আসল নামের চেয়ে ‘জুন আন্টি’ নামেই তিনি বেশি পরিচিত দর্শক মন্ডলীর কাছে।  পর্দায় ‘জুন আন্টি’ চরিত্র টি পুরোপুরি নেগেটিভ। খলনায়িকার চরিত্রে তার অভিনয় সত্যিই গায়ে জ্বালা ধরায় মানুষের, আর এখানেই তো তিনি সফল।

সিপিএম নেতা প্রয়াত শ্যামল চক্রবর্তীর মেয়ে তিনি। বাবার মতো বামপন্থী আদর্শেই তিনি দীক্ষিত। তার ব্যক্তিত্ব, স্টাইল স্টেটমেন্ট, কথা বলার ধরণ সত্যিই ব্যাপক মাত্রায় প্রশংসনীয়। বর্তমানে নেগেটিভ চরিত্রে অভিনয় করলেও নিজের জীবনে দুর্দান্ত পজেটিভ একজন মানুষ তিনি।

তাঁর বয়স অনেকটাই বেড়েছে ঠিকই, কিন্তু সেদিকে কোনো ধ্যান নেই তাঁর। সম্পূর্ণ মনোনিবেশ লেখাপড়াতেই। অভিনয়ের পাশাপাশি চালিয়ে গিয়েছেন লেখাপড়া। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাজনীতি ও লিঙ্গবৈষম্যতে পিএইচডি করছিলেন অভিনেত্রী। গতবছরেই নিজের বিষয়ে থিসিস পেপার জমা দিয়েছিলেন অভিনেত্রী। কিন্তু এরমধ্যে তিনি হারিয়েছেন তার বাবাকে৷ সারাজীবনের আফসোস এবং দুঃখ একটাই মেয়ের এতবড় সাফল্য দেখে যেতে পারলেন না তিনি। থিসিস জমা দেওয়ার কয়েকদিন আগেই পরলোকগমন করেন ঊষসীর বাবা সিপিএম নেতা শ্যামল চক্রবর্তী। দীর্ঘ ৫ বছরের কঠোর পরিশ্রম, এবং ধৈর্য্যর দাম পেলেন তিনি। অবশেষে তার নামের আগে জুড়তে চলেছে ‘ডক্টর’ শব্দটি।

প্রায় একবছর পর ডিগ্রি লাভ করে খুব আনন্দে আছেন জুন আন্টি। সোশ্যাল মিডিয়ায় খুশির খবর জানিয়ে তিনি লিখেছেন, “আমি এতদিনে ‘অ্যাক্টর’ থেকে ‘ডক্টর’ হলাম। অবশেষে ডক্টরেট ডিগ্রী লাভ করলাম। সবথেকে কাকতালীয় ঘটনা আমার বাবার মৃত্যুবার্ষিকীর দিনই আমি এই ডিগ্রি লাভ করেছি। এটা আমার কাছে যেন একটা ম্যাজিক। আমার পিএইচডি এর জন্য আমার থেকেও আমার বাবার বেশি আগ্রহ ছিল। পিএইচডি এর থিসিস জমা দেওয়ার ব্যাপারে বাবা বারবার আমাকে জিজ্ঞাসা করতেন।”