শুনলে অবাক মনে হলেও এ কথাটাই সত্যি! এই সাগরের কোনো তীর নেই

4
শুনলে অবাক মনে হলেও এ কথাটাই সত্যি! এই সাগরের কোনো তীর নেই

শুনলে অবাক মনে হলেও এ কথাটাই সত্যি যে পৃথিবীতে এমন একটি সাগর রয়েছে যার কোনো তীর নেই। সাগর টির নাম হল সারগ্যাসো সাগর। এই সাগরটি আটলান্টিক মহাসাগরে অবস্থিত। বলা যেতে পারে এই সাগরটি আটলান্টিক মহাসাগরে মাঝখানে অবস্থিত, এর চারদিকে প্রবাহমান জলস্রোত রয়েছে। সাগরটির উওরে আছে আটলান্টিক কারেন্ট, দক্ষিনে আছে নর্থ ইকুয়েটেরিয়াল কারেন্ট, পূর্বে রয়েছে ক্যানারি কারেন্ট এবং পশ্চিমে গালফ কারেন্ট। অর্থাৎ এই সাগরের কোন তীর নেই।সারগ্যাসো সাগরের দৈঘ্য প্রায় ৩২০০কিমি এবং প্রস্থ ১১০০কিমি।

সাগরের নামকরণ করেছিলেন পর্তুগিজরা । যখন পর্তুগিজরা বাণিজ্য করতে যেতেন তখনই এই সাগরের উপর দিয়ে তাদেরকে যেতে হতো। পর্তুগিজরা অবাক হয়ে যেতেন এই সাগরের অদ্ভুতপূর্ণ শৈবালের কারণে। তাই তারা এই সাগরের নাম রেখেছিলেন সারগ্যাসি। ইতিহাস অনুযায়ী ১০৯০ খ্রিষ্টাব্দ সম্রাট সুলতান আলি জাহাজ নিয়ে বানিজ্য করতে গিয়েছিলেন সারগ্যাসো সাগরে। সুলতান আলী এই সাগরের এত শান্ত সুন্দর রূপ দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন। তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এই সাগরের শান্তরুপকে মনে ধরে রাখার জন্য চিত্র নির্মাতাকে দিয়ে এই সাগরের শান্তরূপ অঙ্কন করিয়েছিলেন।

এছাড়াও সারগ্যাসো কথা অনেক ইতিহাস গ্রন্থ পাওয়া যায়। তবে অনেকের মনে প্রশ্ন রয়েছে এই সাগরে এত শৈবাল উৎপত্তি কোথা থেকে। আবার অনেকে মনে করেন চারদিকে প্রবাহমান জলপ্রবাহের ফলে এই শৈবাল এর উৎপত্তি হয়। কিন্তু শৈবাল থাকা সত্ত্বেও এই সাগরের জল এতটাই স্বচ্ছ ও নীল রংয়ের যা অকল্পনীয়। তবে এই সাগরের জলের কোন স্রোত নেই অর্থাৎ শান্ত। এই কারণে জাহাজ চালাতে অসুবিধা হতো নাবিকদের এই সাগরের মধ্যে দিয়ে এমন কথা লেখা রয়েছে ইতিহাসে। ভূবিজ্ঞানীদের মতে কয়েক বছরের মধ্যেই এই সারগ্যাসো সাগরটি আর স্বছ থাকবেনা। কারণ মানুষদের ব্যবহৃত প্লাস্টিক সাগরে ফেলা এবং অন্যান্য কারণে ভবিষ্যতে এটি একটি শৈবাল সাগরে পরিণত হবে।