অশোক স্তম্ভের স্থানে ইসলামিক হরফ! জাতীয় পতাকা অবমাননার দায়ে গ্রেপ্তার এক মহিলাসহ তিন নাবালক

20
অশোক স্তম্ভের স্থানে ইসলামিক হরফ! জাতীয় পতাকা অবমাননার দায়ে গ্রেপ্তার এক মহিলাসহ তিন নাবালক

অশোক স্তম্ভের স্থানে ইসলামিক হরফ খোদাই করা জাতীয় পতাকা ওড়ানো হলো। ঘটনাটি ঘটেছে গুজরাট রাজ্যের আনন্দ জেলার উমরেথ এলাকায়। অভিযোগ, উমরেথের কাদিয়াভাল এলাকায় একটি বাড়ির ছাদে ইসলামিক হরফ লিখিত জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে ভারতীয় জাতীয় পতাকার অবমাননা করা হয়েছে। জাতীয় পতাকার অবমাননার দায়ে এক মহিলাসহ তিন নাবালককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, ওই মহিলা তার দশ বছরের ছেলে এবং আরও দুই নাবালককে নিয়ে বাড়ির ছাদে এমন অদ্ভুত কাণ্ড ঘটিয়েছেন। বিষয়টি নজরে আসতেই চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। বিশেষত জাতীয় পতাকার মাঝখানে অশোক চক্রের স্থানে ইসলামিক হরফ দেখে অনেকেই ক্ষুন্ন হন। এরপর এক ব্যক্তি ঘটনাটিকে ক্যামেরাবন্দি করে নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে আনন্দ থানার পুলিশ ও গুজরাট পুলিশকে ট্যাগ করে ছবিটি পোস্ট করে দেন।

বিষয়টি নজরে আসতেই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। এরপর প্রশাসনের তরফ থেকে উদ্যোগ গ্রহণ করে ত্রিশ বছর বয়সী ওই মহিলা সহ তিনজন নাবালককে গ্রেপ্তার করা হয়। আনন্দ ডিভিশনের ডিএসপি বিডি জাদেজা জানিয়েছেন, জাতীয় পতাকার অবমাননার দায়ে এক মহিলাসহ তিন জন নাবালককে পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। নাবালকদের ইতিমধ্যেই জুভেনাইল আদালতে পাঠানো হয়েছে।

ডিএসপি আরও জানিয়েছেন, জাতীয় পতাকায় অশোক স্তম্ভের জায়গায় ইসলামিক হরফ লিখিত ছিল। নাবালকদের এই কাজ থেকে বিরত রাখা উচিত ছিল ওই মহিলার। উল্লেখ্য, জাতীয় পতাকার অবমাননা সংক্রান্ত বহু ঘটনা ইতিপূর্বে ঘটেছে। কখনো জাতীয় পতাকার আদলে পাপোশ তৈরি করে, কখনো বা জাতীয় পতাকার রংয়ের ক্রমবিন্যাস বদলিয়ে, আবার কখনো সভা-সমিতির পরে জাতীয় পতাকা ভূলুণ্ঠিত হতেও দেখা গিয়েছে। কারনে-অকারনে, ইচ্ছাকৃতভাবে হোক বা অনিচ্ছাকৃতভাবে, প্রায়শই এই ধরনের ঘটনা চোখে পড়ে। জাতীয় পতাকার অবমাননার ক্ষেত্রে কড়া আইন আনার দাবিও উঠেছে বহুবার। কিন্তু এ পর্যন্ত টনক নড়েনি প্রশাসনের।