এই প্রচলিত কথাটি কি আদৌ ঠিক? কি বলছে বিজ্ঞান

8
এই প্রচলিত কথাটি কি আদৌ ঠিক? কি বলছে বিজ্ঞান

আমাদের সমাজে এমন বহু প্রচলিত কথা বিশ্বাস আছে যা অর্থহীন। যেমন অনেকেই বলে থাকেন মেয়েদের নাকি জোড়া কলা খেতে নেই। কারণ জোড়া কলা খেলে নাকি যমজ সন্তান হয় বলে মনে করা হয়। এই জন্য ছেলেদের জোড়া কলা খেতে বলে কিন্তু মেয়েদের বারণ করা হয়। কিন্তু এই প্রচলিত কথাটি কি আদৌ ঠিক?
না।

বিজ্ঞান বলছে এটা পুরোপুরি কুসংস্কারমূলক একটি ধ্যানধারনা। যমজ সন্তানের সাথে জোড়া কলার কোনো সম্পর্ক নেই ।
আর এটা কেনো বলছেন বিজ্ঞানীরা আসুন জেনে নেওয়া যাক।

বিজ্ঞানের ভাষায় যমজ সন্তান দুই রকমের হয়।, ‘আইডেন্টিকাল’ ও ‘নন-আইডেন্টিকাল’। সাধারণত আইডেন্টিকাল যমজ সন্তান একই ‘জাইগোট’ থেকে জন্ম নেয়। আর নন-আইডেন্টিকাল যমজের জন্ম হয় আলাদা ‘জাইগোট’ থেকে।

সাধারণত একই জাইগোট থেকে একটি শিশুরই জন্ম হয়। কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে একটি জাইগোট বিভাজিত হয়ে জরায়ুর অন্য কোনও স্থানে গিয়ে বসে যায় আর তখনই দুই আলাদা অংশ থেকে দু’টি আলাদা ভ্রূণ তৈরি হয়। এ ভাবে আইডেন্টিক্যাল যমজ তৈরি হয়। কারণ এদের মূল জাইগোট একটিই। অর্থাৎ, কোনও জিনগত উপাদানে কোনও ভেদ নেই। সাধারণ ভাবে এ ক্ষেত্রে হুবহু একই রকম দেখতে এক জোড়া সন্তানের জন্ম হয়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, পুরুষের শুক্রাণু যখন স্ত্রীর ডিম্বাণুকে নিষিক্ত করে, তখন দু’টি কোষ এক হয়ে তৈরি করে একটি একক কোষ। একেই জাইগোট বলা হয়। অর্থাৎ প্রাণের সূচনা যে কোষ থেকে হয়, তাকেই জাইগোট বলে।
তাই এতে জোড়া কলার যে কোনো প্রভাব থাকে না তা বুঝতে অসুবিধে হয়না।