মুখে মাক্সের বদলে জড়িয়েছেন একটি বিশাল সাপ, যা রীতিমত আঁতকে উঠেছেন সকলে

7
মুখে মাক্সের বদলে জড়িয়েছেন একটি বিশাল সাপ, যা রীতিমত আঁতকে উঠেছেন সকলে

রাস্তায় বেরোলে জামাকাপড়ের মতোই এখন মাক্স নিয়ে চলা একটি নৈতিক কর্তব্যের মধ্যে পড়ে। মাক্স নিয়ে না বেরোলে এমনভাবে আশেপাশের মানুষ তাকিয়ে থাকে, তখন লজ্জায় মানুষ নিজেই মাক্স পড়ে নেয়। কোনো কোনো মানুষ মাক্স এর বদলে মুখে রুমাল অথবা কাপড় জড়িয়ে চলেন। মোট কথা, বাইরে বেরোলে মুখে কোনো কিছু দিয়ে চাপা দেওয়া অবশ্যই প্রয়োজনীয়। তবে মাক্স এর বদলে আপনি রুমাল অথবা কাপড় পরাতে পারেন মুখে, এর বদলে অন্য কিছু দিয়ে মুখে চাপা দেওয়ার কথা হয়তো আপনার মনে আসবে না।

কিন্তু সম্প্রতি ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার এর একটি বাসের মধ্যে যে দৃশ্য দেখা গিয়েছে, সেটা যদি পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে কোন রাজ্যে দেখা যেত তাহলে হয়তো এতক্ষণে শোরগোল পরে যেত গোটা রাজ্যে।

সম্প্রতি ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার এর একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে যা দেখে রীতিমতো আঁতকে উঠেছেন সকলে।
ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে যে বাসের মধ্যে বসে থাকা একজন যাত্রী মাক্স এর বদলে মুখে জড়িয়েছেন একটি বিশাল সাপ। করোনাভাইরাস আটকাতে সাপ কতটা কার্যকর সেটা কারো জানা নেই, তবে ছবিটি দেখে যে রীতিমতো ভয় পেয়ে যেতে হবে তা বলাই বাহুল্য।

বাসের সহযাত্রীরা এই ভদ্রলোকটিকে দেখে প্রথমে ভেবেছিলেন যে সাপের মতো দেখতে কিছু হয়তো জড়িয়ে বসে রয়েছিল যাত্রী। কিন্তু ওটা যে আসল সাপ সেটা বুঝতে বেশি করে সময় লাগেনি কারোর। তবে সাপ জড়িয়ে কিন্তু খুব শান্ত ভাবেই বসেছিলেন অভিযাত্রী। দেখে মনে হবে না যে তিনি কোনো অস্বাভাবিক কিছু কাজ করেছেন।

তবে বাসের অন্যান্য যাত্রীরা ওই ব্যক্তিকে তখন কোন কিছু না বললেও গ্রেটার ম্যানচেস্টার প্রশাসন বিষয়টিকে নিয়ে খুবই আপত্তি জানিয়েছেন। তাদের মতে,”সাপের চামড়া দিয়ে তৈরি মাক্স ব্যবহার করা যেতে পারে, এমন কথা দেশের কোন প্রশাসন বলেননি।বিশেষ করে যে চামড়া যখন সাপের গায়ে লেগে রয়েছে এমন অবস্থায় তো নয় ই। এর ফলে ওই যাত্রী র সঙ্গে সঙ্গে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে ওই সরীসৃপ টিও”।