শিল্প এবং বিনিয়োগের বেহাল অবস্থা নিয়ে হতাশ শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়

9
শিল্প এবং বিনিয়োগের বেহাল অবস্থা নিয়ে হতাশ শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার পর এবার রাজ্য মন্ত্রিসভাও গঠন হয়ে গেল। ক্যাবিনেট মন্ত্রকে বহু রদবদল এনেছে রাজ্য সরকার। এর মধ্যে সর্বাপেক্ষা উল্লেখযোগ্য হলো প্রাক্তন শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে সরিয়ে দিয়ে ফের রাজ্যের অতি পুরাতন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুকে আগামী পাঁচ বছরের জন্য শিক্ষা মন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করেছে রাজ্য সরকার।

পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে তার পুরনো ফিল্ড থেকে সরিয়ে আবার শিল্প দফতরের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। বলাবাহুল্য, রাজ্য সরকারের এমন সিদ্ধান্ত কিন্তু বিন্দুমাত্র খুশি নন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বরং তার গলায় শোনা যাচ্ছে হতাশার সুর। রাজ্য সরকারের ঘোষণার পরপরই সংবাদমাধ্যমের সামনে দাঁড়িয়ে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বললেন, শিল্প দপ্তর থেকে যখন তাকে শিক্ষা দপ্তরের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল তখন তার কাছে বেশ চ্যালেঞ্জের ব্যাপার ছিল সেটি।

তবে তিনি আরও বললেন, “সারা বিশ্বেই বিনিয়োগ এবং শিল্পের যা হাল…. প্রাক্তন শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্র অবশ্য অনেকখানি এগিয়ে গিয়েছেন। এবার আগামী দিনের জন্য তার কাছ থেকে পরামর্শ নিতে হবে”! অর্থাৎ শিল্পমন্ত্রকের দায়িত্ব পাওয়ার পরপরই সারাবিশ্বের শিল্প এবং বিনিয়োগের বেহাল অবস্থার কথা মনে করিয়ে দিলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। অতএব আগামী দিনে রাজ্যের শিল্পের কতখানি উন্নতি হবে, তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই গেল।

এবার বর্তমান শিক্ষা মন্ত্রী ব্রাত্য বসু সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, “ব্রাত্য বসু যখন শিক্ষা মন্ত্রী ছিলেন তখন তো আর রাজ্যে ৫০টা বিশ্ববিদ্যালয় ছিল না। ৫২টা নতুন সরকারি স্কুল ছিল না। ১০০-র ওপর ইংলিশ মিডিয়াম ও ৭৫০টির ওপর হিন্দি মাধ্যম স্কুলও ছিলনা। ওই এবার সেই ধারাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। কোন ভুল থাকলে তা সংশোধন করে নেবে”।