জৈব জ্বালানি তৈরিতে চীনকে টেক্কা দিতে চলেছে ভারত

5
জৈব জ্বালানি তৈরিতে চীনকে টেক্কা দিতে চলেছে ভারত

বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে পেট্রোল-ডিজেলের দাম সব জায়গাতেই সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছে। দেশজুড়ে এই সেঞ্চুরি যেভাবে অগ্রসর হচ্ছে, তাতে সন্দেহ নেই খুব শীঘ্রই ডাবল সেঞ্চুরিতে এটি পরিণত হবে বলে। এই অবস্থায় সাধারণ মানুষ-এর কালঘাম ছুটে যাওয়ার মত অবস্থা, কোনোদিন এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হবে বলে কেউ মনে করেনি। আর স্বাভাবিকভাবেই পেট্রোল-ডিজেলের দাম বৃদ্ধি হওয়ার কারণে অন্যান্য জিনিসের দাম বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে।

এই মুহূর্তে এই কারণেই দেশে মূল্যবৃদ্ধি হচ্ছে বলে জানিয়েছে আর বি আই। কেন্দ্রীয় সরকার, রাজ্য সরকার বিভিন্নভাবে ট্যাক্সের পরিমাণ কমিয়ে ডিজেল পেট্রোলের দাম কমানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু ইন্টার্নেশনাল এনার্জি এজেন্সি রিসার্চের ভিত্তিতে জানা গিয়েছে,অদূর ভবিষ্যতে ইথানলের একটি অন্যতম বৃহত্তম বাজার হতে চলেছে ভারত। তবে এখানেই শেষ নয়, একেবারে চীনকে টেক্কা দিতে চলেছে ভারত।

রিসার্চের মাধ্যমে জানা যাচ্ছে, 2026 সালের মধ্যে ভারত নাকি আমেরিকা ব্রাজিলের পরে তৃতীয় স্থান দখল করতে চলেছে ইথানলের বাজার হিসেবে। আর সেই হিসেবেই চীনকে আগামীতে টেক্কা দিতে চলেছে ভারত। খুব দ্রুততার সাথে কাজ করছে ভারত যেখানে 2017 সালে ব্লেন্ডিং 2 শতাংশ ছিল সেখানেই 2021 সালে সেটি বৃদ্ধিতে 8% হয়েছে। শীঘ্রই এটি 10% পৌঁছাবে বলে আন্দাজ করা যাচ্ছে। সমস্ত কিছু পরিকল্পনা মাফিক চললে আগামীতে, সাধারণ মানুষের দারুন সুবিধা হতে চলেছে।

ইথানলের ব্যবহার বৃদ্ধি পেলে জ্বালানির দাম দারুণভাবে কমে যাবে। আর সেই কারণেই যাতায়াত ভাড়ার উপরেও দারুণ প্রভাব পড়বে। ইথানল হল একটি জৈব জ্বালানি যা কিনা আখ ও ভুট্টা থেকে তৈরি করা হয়। ইথানল ব্যবহার বৃদ্ধি করলে ভারতের পরিবেশ দূষণের মাত্রা অনেকটাই কমে যাবে। তাও তো অনেক দেশেই পেট্রোল-ডিজেলের পরিবর্তে জ্বালানি হিসেবে ইথানল ব্যবহার করা হয়, আগামীতে ভারতেও যে সেই ব্যবহার শুরু হবে সেটা আন্দাজ করা যাচ্ছে।।