কোন ধর্মে হবে সৎকার? উত্তর না মেলায় সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে হাসপাতালের মর্গেই পড়ে রইলো এক ব্যক্তির দেহ

11
কোন ধর্মে হবে সৎকার? উত্তর না মেলায় সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে হাসপাতালের মর্গেই পড়ে রইলো এক ব্যক্তির দেহ

হিন্দু না মুসলিম? এই প্রশ্নের উত্তর না মেলার দরুন দীর্ঘ সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে হাসপাতালের মর্গেই পড়ে রইলো এক ব্যক্তির দেহ। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সূত্রে খবর, ওই ব্যক্তির দুই স্ত্রী দুই ধর্ম মতে তার সৎকার করতে চাইছেন। যা নিয়ে বিতর্ক দেখা দিয়েছে। সে বিতর্ক আদালত অব্দি পৌঁছেছে। আদালতে মামলা এখনো নিষ্পত্তি হয়নি। সাত বছরের বেশি সময় ধরে তাই ব্যক্তির মৃতদেহ পড়ে রইলো ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের মর্গের ডিপ ফ্রিজে।

ঘটনাটি ঘটেছে বাংলাদেশে। যতদূর জানা গেল ওই ব্যক্তির নাম খোকন নন্দী। জন্মসূত্রে তিনি সনাতন ধর্মাবলম্বী। প্রথম শ্রেণীর আনন্দের সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদ না করেই তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং দ্বিতীয় বিবাহ করেন। ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার পর তার নাম হয় খোকন চৌধুরী। এরপর তিনি আর প্রথমা স্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ রাখেননি। ধর্মান্তরিত হওয়ার পর শরিয়ত মতে হাবিবা আকতার খানম নামের এক মহিলাকে বিয়ে করেন।

দ্বিতীয় স্ত্রীর সঙ্গেই জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত ছিলেন তিনি। তবে গোল বাঁধলো যখন ২০১৪ সালে ঢাকার একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু হল। তার মৃত্যু সংবাদ পেয়ে তার প্রথম স্ত্রীও স্বামীর দেহের দাবী চেয়ে বসেন। এদিকে দ্বিতীয় স্ত্রীও স্বামীর দেহ সৎকারের দাবি ছাড়তে নারাজ। এই বিতর্কের জেরে দুজনেই আদালতের দ্বারস্থ হন। আদালত এ পর্যন্ত কোনো সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারেনি।

আদালতের নির্দেশে আপাতত ওই ব্যক্তির মৃতদেহ ঢাকার মেডিকেল কলেজেই সংরক্ষিত আছে। প্রধানত খোকনের সম্পত্তি নিয়েই কার্যত এই বিবাদ দেখা দিয়েছে। রাজধানী ঢাকার ফার্মগেটে খোকনের একটি মার্কেট রয়েছে। ওই মার্কেটের ভাড়া তোলা ও সম্পত্তি নিয়েই বিবাদ বেঁধেছে দুই স্ত্রীর মধ্যে।